ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৯ মে, ২০২২, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
Janata Bank
Rupalibank

সাকিবের বরিশালকে গুড়িয়ে কুমিল্লার বড় জয়


Ekushey Sangbad
ক্রীড়া প্রতিবেদক
০৯:১৭ পিএম, ২৫ জানুয়ারি, ২০২২
সাকিবের বরিশালকে গুড়িয়ে কুমিল্লার বড় জয়

বিপিএলে টানা দ্বিতীয় জয় পেয়েছে শিরোপা প্রত্যাশী কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। মঙ্গলবার মিরপুরে সাকিব-গেইলদের বরিশালকে ৬৩ রানে হারিয়েছে ইমরুল কায়েসর দল। এ জয়ের ফলে বিপিএলে চার ম্যাচের দুটি জিতে ঢাকায় প্রথম পর্বের খেলা শেষে ৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে কুমিল্লা। তিন ম্যাচের দুটিতে হেরে সাকিবদের অবস্থান তিনে।

জয়ের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় সাকিবরা। কুমিল্লার স্পিনার নাহিদুল ইসলামে বিষাক্ত স্পিনে শুরু থেকেই ধুকতে থাকে সাকিবের দল। ইনিংসের শুরুতেই শুন্য রানে বিদায় নেন সৈকত আলী। এরপর সাকিব ১,তৌহিদ হায়দার ১৯, ক্রিস গেইল ৭ রানে বিদায় নেন। দলীয় ৯.৫ ওভারে দলীয় ৫৪ রানে সেরা চার উইকেট হারিয়ে চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ে পরে তারা।

দলের বিপদে  টেস্টে মেজাজে ব্যাটিং শুরু করে নাজমুল ইসলাম শান্ত। অন্যদিকে উইকেটের অন্যপ্রান্তে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় দলটি। শান্ত দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৬ রান করেন ৪৭ বল খেলে। যা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সত্যিই লজ্জার। শেষ পর্যন্ত ১৭.৩ ওভারে ৯৫ রানে গুটিয়ে যায় তারা।

কুমিল্লার হয়ে নাহিদুল ইসলাম ৪ ওভারে মাত্র ৫ রানে একাই নেন তিন উইকেট। এছাড়া শহিদুল ইসলাম ও তানভির ইসলাম নেন দুটি করে উইকেট। মোস্তাফিজ ২.৩ ওভারে নেন একটি উইকেট।

এর আগে মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ফরচুন বরিশালের বিপক্ষে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নামে কুমিল্লা। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৭ উইকেট হারিয়ে তারা সংগ্রহ করেছে ১৫৮ রান। শুরুতে ব্যাটিংয়ে নেমে দুই ওপেনার ক্যামেরন ডেলপোর্ট ও জয়ের ব্যাটে ভালো শুরু পায় কুমিল্লা। কিন্তু নাঈম হাসানের বলে দলীয় ৩৩ রানে ডেলপোর্টের ব্যাটের কানায় লেগে বল উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান সোহানের গ্লাভসে জমা হলে ভাঙে এই জুটি। এরপর কুমিল্লার সবচেয়ে বড় ভরসা ফাফ ডু প্লেসিকে (৬) দ্রুত বিদায় করেন সাকিব আল হাসান।  

ডু প্লেসি বিদায় নেওয়ার পড় কুমিল্লার রানের চাকার গতি কমে যায়। সেই চাপে অধিনায়ক ইমরুল কায়েস ১১ বলে ১৫ রান করে শিকার হন ডোয়াইন ব্র্যাভোর। ক্যারিবীয় অলরাউন্ডারের লাফিয়ে উঠা বল ইমরুলের ব্যাটের কানায় লেগে সোহানের গ্লাভসে জমা হয়। তবে জয় তখন একপ্রান্ত আগলে রানের চাকা সচল রাখেন।

দুর্দান্ত ব্যাট করতে থাকা জয় একসময় ফিফটির সম্ভাবনাও জাগিয়েছিলেন। কিন্তু জেক লিন্টটের বলে ক্রিস গেইলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরার আগে ৩৫ বলের মোকাবিলায় ৬ চার ও ১ ছক্কায় ৪৮ রান করেন তিনি। এরপর ২ রান যোগ হতেই সাকিবের বলে বিদায় নেন জাতীয় দলের টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক। ২৩ বলে ১৭ রান করার পথে কোনো বাউন্ডারি হাঁকাতে পারেননি এই বাঁহাতি।  

১১৭ রানে ৫ উইকেট হারানো কুমিল্লাকে এরপর ১৫০ ছাড়ানো সংগ্রহ এনে দেন আফগান ব্যাটার করিম জানাত। মাঝে মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন ৮ রানে এবং নাহিদুল ইসলাম শূন্য রানেই ফেরেন। ১৮তম ওভারে পরপর দুই বলে দুজনকে বিদায় করেন ব্র্যাভো। তবে জানাত ১৬ বলে ১ চার ও ছক্কায় ২৯ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়ান। সঙ্গী শহিদুল ইসলাম ৫ বলে ৫ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন।

বল হাতে সাকিব ৪ ওভারে ২৫ রান খরচে নেন ২ উইকেট। সমান ওভারে ৩ উইকেট নিলেও ব্র্যাভো খরচ করেন ৩০ রান। ১টি করে উইকেট পেয়েছেন নাঈম ও লিন্টট।

একুশে সংবাদ/এসএস/