AB Bank
ঢাকা বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

সেরেলাকে অতিরিক্ত চিনি, যা বললো নেসলে


Ekushey Sangbad
একুশে সংবাদ ডেস্ক
০৯:১৯ পিএম, ১৮ এপ্রিল, ২০২৪
সেরেলাকে অতিরিক্ত চিনি, যা বললো নেসলে

বাংলাদেশে শিশুখাদ্য হিসেবে বেশ চাহিদা রয়েছে সুইজারল্যান্ডের প্রতিষ্ঠান নেসলের সেরেলাকের। সুইজারল্যান্ডের অলাভজনক বেসরকারি সংগঠন পাবলিক আই ও ইন্টারন্যাশনাল বেবি ফুড অ্যাকশন নেটওয়ার্কের যৌথ গবেষণায় সেরেলাক নিয়ে উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য।

পাবলিক আইয়ের প্রতিবেদন অনুসারে, সুইজারল্যান্ডে নেসলে তাদের পণ্য সেরেলাকে বাড়তি কোনো চিনি ব্যবহার না করলেও দক্ষিণ এশিয়ার বাংলাদেশ, ভারতসহ উন্নয়নশীল দেশ ও দরিদ্র দেশগুলোতে তারা সেরেলাকে চিনি ব্যবহার করছে। আশঙ্কাজনক ব্যাপার হলো, শিশুদের জন্য নেসলের ব্র্যান্ড নিডোর যেসব পণ্য আছে তার সবগুলোতেই বাড়তি চিনি আছে। গড়ে এই বাড়তি চিনির পরিমাণ প্রায় ৩ দশমিক ৩ গ্রাম।

গবেষণায় দেখা যায় বাংলাদেশের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে বিক্রি হওয়া সেরেলাকেও ব্যবহার করা হয় চিনি। এ বিষয়ে বেশ কিছু গণমাধ্যম প্রতিবেদন প্রকাশ করে। পরে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছে নেসলে।

তারা বলছে, ‍‍`আমরা আপনাকে আশ্বস্ত করতে চাই যে আমাদের শিশু খাদ্যশস্য পণ্যগুলো প্রাথমিক শৈশবকালের জন্য প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট, ভিটামিন, খনিজ পদার্থ, আয়রন ইত্যাদি পুষ্টির প্রয়োজনীয়তাগুলোর যথাযথ সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য তৈরি করা হয়। আমরা কখনই পণ্যের পুষ্টির মানের সঙ্গে আপস করি না এবং কখনই করবো না। বিস্তৃত গ্লোবাল রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট নেটওয়ার্ককে আমাদের পণ্যের পুষ্টির প্রোফাইল বাড়ানোর জন্য ব্যবহার করি।‍‍`

ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, নেসলে বাংলাদেশের অপরিহার্য বৈশিষ্ট্য হল, আমরা এর পুষ্টিগুণের সঙ্গে কখনই আপস করবো না। আমরা এটাও নিশ্চিত করি যে বাংলাদেশে উৎপাদিত আমাদের পণ্যগুলো CODEX মান (WHO এবং FAO দ্বারা প্রতিষ্ঠিত একটি কমিশন) এবং শর্করাসহ সব পুষ্টির প্রয়োজনীয়তার সঙ্গে সম্পর্কিত স্থানীয় স্পেসিফিকেশন (প্রয়োজন অনুসারে) সম্পূর্ণ এবং কঠোরভাবে মেনে চলছে।

চিনি থাকার অভিযোগ অস্বীকার করে নেসলে বলছে, গত পাঁচ বছরে আমরা বৈকল্পিকের ওপর নির্ভর করে বিভিন্ন ক্ষেত্রে ইতোমধ্যেই ৪০ শতাংশ পর্যন্ত চিনির ব্যবহার  কমিয়েছি। আমরা নিয়মিত আমাদের পোর্টফলিও পর্যালোচনা করি এবং পুষ্টি, গুণমান, নিরাপত্তা এবং স্বাদের সঙ্গে আপস না করে পণ্যে শর্করার মাত্রা আরও কমাতে পণ্যগুলোকে উদ্ভাবন এবং সংস্কার করা চালিয়ে যাচ্ছি। নেসলে বাংলাদেশ ভোক্তাদের সর্বোত্তম পুষ্টি সরবরাহ করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ উল্লেখ করে তারা বলছে, সবসময় আমাদের পণ্যগুলিতে পুষ্টি, গুণমান এবং নিরাপত্তার সর্বোচ্চ মান বজায় রাখব।


একুশে সংবাদ/হ.ক.প্র/জাহা    
 

Link copied!