AB Bank
ঢাকা রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

ডিআরএসের কক্ষে ক্যামেরা রাখার দাবি ভনের


Ekushey Sangbad
স্পোর্টস ডেস্ক
০৯:১৭ পিএম, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
ডিআরএসের কক্ষে ক্যামেরা রাখার দাবি ভনের

ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম (ডিআরএস) নিয়ে বিতর্ক যেন কিছুতেই থামছেই না। রাঁচি টেস্টে জো রুটের এলবিডব্লিউ নিয়ে নতুন করে আবার আলোচনায় ডিআরএস বিতর্ক। এ অবস্থায় স্বচ্ছতা আনতে ডিআরএসের কক্ষে ক্যামেরা লাগানোর দাবি জানিয়েছেন ইংল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক মাইকেল ভন।

চলমান ভারত-ইংল্যান্ড টেস্ট সিরিজে বারবার আলোচনায় এসেছে ডিআরএস বিতর্ক। কিছুদিন আগে জ্যাক ক্রলির আউটে ডিআরএসের ভুল দেখছেন ইংলিশ অধিনায়ক বেন স্টোকস। এবার রাঁচি টেস্টে আবারো এই ডিআরএস নিয়ে আলোচনায় এসেছে।

সিরিজের চতুর্থ টেস্টে অশ্বিনের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন ইংলিশ ব্যাটার জো রুট। সেই আউটের সিদ্ধান্ত নিয়েই লেগেছে গোলমাল। রুটকে প্রথমে আউট দেননি আম্পায়ার। এরপর ডিআরএস নেয় ভারত। পরবর্তীতে আম্পায়ার ধর্মসেনাকে তার সিদ্ধান্ত বদলে ফেলতে হয়।

খালি চোখে দেখে আউট মনে না হলেও, বল ট্র্যাকিংয়ে দেখা যায় লেগ স্টাম্পের ভেতরে পিচ করে স্টাম্পে গিয়ে আঘাত করতো বল। যার অর্থ আউট। রিভিউর ফলে টিভি আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে রুটকে আউট দেন ধর্মসেনা। তবে রুট এবং ইংল্যান্ড দল এই ব্যাপারে অতটা খুশি ছিল না।

এ ব্যাপারে বিবিসিকে মাইকেল ভন বলেন, ‘আমি বলছি না কেউ প্রতারণা করছে। যে সিদ্ধান্তের সঙ্গে আমরা সবাই দ্বিমত পোষণ করছি। এমন সিদ্ধান্ত নেয়ার পর আমি শুধু উত্তর দেয়ার চেষ্টা করেছি। হক-আইয়ের ওই ব্যক্তি যদি ক্যামেরার সামনে থাকেন, তবে সব ফিসফাস বন্ধ হয়ে যাবে।’

পরে ইংল্যান্ডের আরেক সংবাদমাধ্যম দ্য টেলিগ্রাফে লেখা এক কলামে নিজের মতের বিস্তারিত তুলে ধরেন ভন। ভন তার কলামে লেখেন, ‘প্রথমত, আমি ক্রিকেটেপ্রযুক্তি পছন্দ করি। তার মানে এই না, সুযোগ থাকার পরও আমরা উন্নতির সুযোগ নেব না।’

ভনের মতে, ‘খোলা চোখে এটিকে দেখে আউট মনে হয়নি। কারণ, আপনি দেখে মনে করবেন না যে এটি লাইনের মধ্যে পিচ করবে। এরপর হক-আই যখন তাদের ছবি দেখাল, আমি খোলা চোখে বলতে পারছিলাম না এটি লাইনের মধ্যে পড়েছে কি না।’

তিনি আরো বলেন, ‘পর্দায় শুধু দেখানো হচ্ছে - লাল, লাল, লাল (পিচিং ইন লাইন, ইমপ্যাক্ট ইন লাইন, উইকেট হিটিং)। একবার মনে হচ্ছে অর্ধেকের বেশি ভেতরে, একবার মনে হচ্ছে উল্টোটা। এরপর আমি যে সিদ্ধান্তে এলাম, জো দুর্ভাগা, কিন্তু আমি প্রযুক্তির পক্ষে। কারণ, আমার আর উপায় কী!’

ভন যোগ করেন, ‘সিদ্ধান্ত যখন নেয়া হচ্ছে, একটা ক্যামেরা আর মাইক্রোফোন থাকুক সেখানে। যাতে আমরা সবাই জানি কী হচ্ছে। ব্যাপারটির মধ্যে কতটা মানবিক দিক আছে। আর একজন আইসিসি কর্মকর্তা যদি থাকেন, তাহলে আমরা জানব যে স্বচ্ছতাও আছে।’

একুশে সংবাদ/এস কে

Link copied!