AB Bank
ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

যে তিন কারনে বাতিল হলো ইমরানে মনোনয়নপত্র


Ekushey Sangbad
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১২:৩২ পিএম, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২৩
যে তিন কারনে বাতিল হলো ইমরানে মনোনয়নপত্র

পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচনে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এতে পাঞ্জাব প্রদেশের লাহোর ও মিয়ানওয়ালি শহরের আসন দুটি থেকে নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না তিনি।

শনিবার প্রদেশের আঞ্চলিক নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা এ তথ্য জানিয়েছেন।

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন সামনে রেখে পাকিস্তান তেহরিক–ই–ইনসাফ (পিটিআই) প্রধান ইমরান লাহোরের এনএ–১২২ ও মিয়ানওয়ালির এনএ–৮৯ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। তবে ইমরানের মনোনয়নপত্র বাতিল হলেও লাহোর এনএ–১৩০ আসনে পাকিস্তান মুসলিম লিগ–নওয়াজ (পিএমএল–এন) প্রধান নওয়াজ শরিফের মনোনয়নপত্র গ্রহণ করেছে নির্বাচন কমিশন।

ইমরানের মনোনয়নপত্র বাতিল নিয়ে এনএ–১২২ আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ ইকবালের ভাষ্য— আসনটিতে ইমরানের মনোনয়নপত্র নিয়ে তিনটি আপত্তি তুলেছিলেন পিএমএল–এন নেতা মিয়া নাসের।

সেগুলো হলো, যিনি ইমরানের পক্ষে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন, তিনি এই আসনের ভোটার নন; অসততার অভিযোগে সাজা খাটছেন ইমরান এবং সাজা হওয়ায় পাঁচ বছরের জন্য নির্বাচনে অযোগ্য ইমরান, আর আদিয়ালা কারাগারে বন্দি ইমরানের মনোনয়নপত্রে সত্যায়ন করেননি কারাগারের প্রধান। অভিযোগগুলোর ভিত্তিতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

গত বছর পাকিস্তান সরকার থেকে ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর থেকেই ব্যাপক প্রতিকূলতার মুখে রয়েছেন ইমরান ও তার দল পিটিআই। তিনিসহ দলের অনেক নেতা এখন কারাগারে। আর শুধু ইমরানই নন, পিটিআইয়ের অনেক নেতারও মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ তালিকায় রয়েছেন পিটিআইয়ের ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মাহমুদ কুরেশি ও সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হাম্মাদ আজহার। এক্সে (সাবেক টুইটার) এক পোস্টে দলটি অভিযোগ করে বলেছে, ‘ইমরান খানসহ পিটিআইয়ের ৯০ শতাংশ গুরুত্বপূর্ণ নেতার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।’

তবে মনোনয়নপত্র বাতিল হলেও ইমরানসহ অন্য নেতাদের নির্বাচনে অংশ নেওয়ার আশা এখনই ফুরাচ্ছে না। নির্বাচন কমিশনের এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আগামী ৩ জানুয়ারি পর্যন্ত তারা আদালতে আবেদন করতে পারবেন। ওই আবেদনের ভিত্তিতে ১০ জানুয়ারির মধ্যে সিদ্ধান্ত নেবেন আদালত।


একুশে সংবাদ/এসআর

Link copied!