AB Bank
ঢাকা বুধবার, ১৭ জুলাই, ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

এই পিচে কি কখনও বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল খেলা হয়: জোনাথন ট্রট


Ekushey Sangbad
স্পোর্টস ডেস্ক
০৫:৪৬ পিএম, ২৭ জুন, ২০২৪
এই পিচে কি কখনও বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল খেলা হয়: জোনাথন ট্রট

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২৪-এর সেমিফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে আফগানিস্তানের হারের জন্য পিচকেই দায়ী করলেন আফগানিস্তানের কোচ জোনাথন ট্রট। ম্যাচে ব্যবহৃত পিচের কঠোর সমালোচনা করে তিনি বলেছেন, এত বড় ম্যাচের জন্য এটি উপযুক্ত পিচ ছিল না। এই পিচটি ফাস্ট বোলারদের গতিশীলতা প্রদান করছিল এবং এতে অনিশ্চিত বাউন্স ছিল। আফগানিস্তান দল এই পিচে মাত্র ৫৬ রান করে অলআউট হয়ে যায়। যা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে সর্বনিম্ন স্কোর। দক্ষিণ আফ্রিকা ৮.৫ ওভারে সেই লক্ষ্য অর্জন করলেও প্রথম দিকে দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানদেরও এই পিচে লড়াই করতে হয়েছিল। 

আফগানিস্তানের কোচ জোনাথন ট্রট ম্যাচের পরে বলেছিলেন, ‘আমি নিজেকে ঝামেলায় ফেলতে চাই না এবং আমি আঙ্গুর টক এমন পরিস্থিতিও তৈরি করতে চাই না। তবে বলতে পারি এটা এমন পিচ ছিল না যে কেন দল খেলতে চাইবে। কাপের সেমিফাইনালে এমন পিচ হওয়াটা উচিত নয়।’ ইংল্যান্ডের এই প্রাক্তন ব্যাটসম্যান বলেছেন, এই পিচে ব্যাটিং করা খুব কঠিন।

ম্যাচের পর জোনাথন ট্রট বলেন, ‘প্রতিযোগিতা সমান হওয়া উচিত। আমি বলছি না যে এটি কোন স্পিন বা সীম আন্দোলন ছাড়াই সমতল হওয়া উচিত। আমি যা বলতে চাইছি তা হল আপনার ব্যাটসম্যানদের নিয়েও চিন্তিত হওয়া উচিত। ব্যাটসম্যানদের তাদের পায়ের নড়াচড়ার উপর আস্থা থাকতে হবে এবং তাদের প্রতিভা কাজে লাগাতে হবে।’

জোনাথন ট্রট বলেছেন, ‘টি-টোয়েন্টি খেলার পুরোটাই আগ্রাসন এবং রান করা এবং উইকেট নেওয়া। এই ক্রিজটিকে এই ফর্ম্যাটের জন্য করা হয়নি।’ চলতি বিশ্বকাপে এই মাঠে পাঁচটি খেলা হয়েছে, যার মধ্যে প্রথম ব্যাট করা দল মাত্র একবারই ১০০ রান পার করেছে। স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ছয় উইকেটে ১৪৯ রান করে এবং সফলভাবে তা রক্ষা করেছিল।

তাদের প্রথম বিশ্বকাপ সেমিফাইনাল খেলার আগে আফগানিস্তানের ব্যস্ত সময়সূচী ছিল এবং ট্রট বলেছিলেন যে তার খেলোয়াড়রা ক্লান্ত। ট্রট বলেছেন, ‘আমরা শেষ ম্যাচের পরে ৩ টায় হোটেলে পৌঁছতে পেরেছিলাম এবং ৫ ঘণ্টা পরে আমাদের চলে যেতে হয়েছিল। এইভাবে আমরা ঘুমানোর বেশি সময় পাইনি এবং খেলোয়াড়রা সত্যিই ক্লান্ত ছিল। কিন্তু আমরা আমাদের প্রোগ্রাম সম্পর্কে সচেতন ছিলাম এবং এটি একটি অজুহাত নয়। আপনি যখন বিশ্বকাপ বা যে কোনও টুর্নামেন্টে খেলেন, তখন সবকিছু আপনার মতো হয় না এবং আপনাকে এই অসুবিধাগুলির মুখোমুখি হতে হবে।’

 

একুশে সংবাদ/ এস কে

Link copied!