AB Bank
ঢাকা রবিবার, ১৪ জুলাই, ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী
আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী

উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দল


Ekushey Sangbad
একুশে সংবাদ ডেস্ক
০২:৪৫ পিএম, ২০ জুন, ২০২১
উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দল

আগামীকাল ২৩ জুন। উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক সংগঠন আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। ১৯৪৯ সালের এই দিনে বাঙালির মুক্তির আকাঙ্ক্ষাকে উপজীব্য করে পাকিস্তানের প্রথম বিরোধী দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ ঘটে বাংলার গণমানুষের প্রিয় এ সংগঠনের।

৭২ বছরের পথচলায় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে বাঙালি মাতৃভাষার অধিকার ফিরে পায়, অর্জন করে হাজার বছরের কাঙ্খিত মুক্তি ও স্বাধীনতা। সংগঠনের জ্যেষ্ঠ নেতৃবৃন্দ বলছেন, স্বাধীন জাতিরাষ্ট্র বাংলাদেশের অভ্যুদয় এবং বাঙালির স্বপ্নময় পথ চলার প্রতিটি সোপানে আওয়ামী লীগের ভূমিকা গৌরব এবং ঐতিহ্যের। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী নিয়ে সুজন হালদারের বিশেষ প্রতিবেদন।

হাজার বছরের শোষণ বঞ্চনা আর অধিকারহীনতার বৃত্ত ভেঙে বাঙালি নিজের মতো করেই স্বপ্ন দেখবার, নিজের মতো করে পথ চলবার , আপন জাতিসত্তায় ঘুরে দাঁড়াবার দীর্ঘদিন ধরেই সংগ্রাম করে আসছিল। কিন্তু স্বপ্নভঙ্গের বেদনা বারবারই আশাহত করে এ জনপদের মানুষদের। বিশেষ করে, ১৯৪৭ সালে সৃষ্ট পাকিস্তান বাংলার মানুষকে আবদ্ধ করে নতুন পরাধীনতার শৃংখলে। শুরুতেই বাঙালির মাতৃভাষা বাংলার উপর আঘাত হানে পাকিস্তান সামরিক জান্তা।

আঘাত হানে বাঙালির অর্থনৈতিক রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অধিকারের ওপর। অধিকারহীনতার বৃত্ত থেকে জাতিকে মুক্তি ও স্বাধীনতার স্বপ্নে উজ্জ্বীবিত করতে ১৯৪৮ সালে ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করেন বাঙালি জাতির মহান স্বপ্নদ্রষ্টা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধুর সংগ্রাম ও স্বপ্নময় সিঁড়িতে সম্মিলিত হন এ জনপদের উদার ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার নেতৃবৃন্দ।

ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে তারা নতুন একটি রাজনৈতিক সংগঠন গড়ে তোলা হবে সিদ্ধান্তে উপনীত হন। রামগঞ্জে খান সাহেব ওসমান আলীর বাড়ি সহ বিভিন্ন জায়গায় গোপন বৈঠকে মিলিত হন নেতৃবৃন্দ। পাকিস্তান কেন্দ্রীয় সরকার ও মুসলিম লীগের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে ১৯৪৯ সালের এই দিনে ঢাকার রোজ গার্ডেনে কর্মী সম্মেলন এর মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে পথ চলা শুরু হয় আওয়ামী লীগ নামক নতুন সংগঠনের। সম্মেলনে মলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীকে সভাপতি,

শামসুল হককে সাধারণ সম্পাদক এবং কারাবন্দি শেখ মুজিবুর রহমানকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক করে গঠিত হয় পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ। পরবর্তী সময়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে সংগঠনটি পুরোপুরি উদার অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক রূপ লাভ করে। গঠনতন্ত্রে সংশোধনী এনে সংগঠনের নাম করণ করা হয় পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ, দেশ স্বাধীন হওয়ার পর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সংগঠনটি বাংলার গণমানুষের স্বপ্নের অভিন্ন ঠিকানায় পরিণত হয়।

জন্ম লগ্ন থেকেই আওয়ামীলীগ বাংলার মানুষের স্বপ্ন ও মুক্তি আকাঙ্ক্ষাকে ধারণ করে পথ চলে। অন্যভাবে বললে, একটি উদাহরণ সাম্প্রদায়িক মানবিক ও গণতান্ত্রিক স্বাধীন জাতি রাষ্ট্রগঠনের স্বপ্ন ও অভিপ্রায় নিয়ে এই আওয়ামী লীগের জন্ম, পথ চলা। ধারাবাহিক আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে যে স্বপ্ন বাস্তবে রূপ নেয়।

৫২,র রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ৬৬ র ছয় দফা ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান ৭১ র নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয় এবং একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ নামক স্বাধীন জাতি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা; বাঙালির সব অর্জনের স্বপ্নসিঁড়ি বঙ্গবন্ধু এবং আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই নির্মিত হয়।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পরেও আওয়ামী লীগই নেতৃত্ব দেয় যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে নতুনভাবে ঢেলে সাজানোর কাজে। ৭৫ এ জাতির পিতা নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর থমকে যায় জাতির স্বপ্নযাত্রা। বঙ্গবন্ধুর ঘাতক মোশতাক আজ জিয়ার স্বৈরশাসনে অনেকটা বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে আওয়ামীলীগ। ১৯৮১ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের হাল ধরেন। ১৯৮১ থেকে ২০২১ ।

চার দশক শেখ হাসিনা নেতৃত্ব দিয়ে চলছেন বাংলার গণমানুষের প্রিয় সংগঠন আওয়ামী লীগের। রাষ্ট্র ক্ষমতায় থেকে কখনোবা ক্ষমতার বাইরে থেকে শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগই নেতৃত্ব দিয়ে আসছে গণতান্ত্রিক অভিযাত্রায়। শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই বাংলাদেশ পথ হাঁটছে উন্নয়নের অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায়।

বলবার অপেক্ষা রাখে না,৭২ বছরের পথচলায় আওয়ামী লীগের ইতিহাস গৌরব ও ঐতিহ্যের। সঙ্গত কারণেই, আওয়ামী লীগের প্রতিটি নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা- আগামী দিনের পথ চলায়ও আওয়ামী লীগ গৌরব ঐতিহ্যের ধারা সমুন্নত রাখতে সক্ষম হবে।

 

Link copied!