AB Bank
ঢাকা রবিবার, ২৬ মে, ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

ভিকারুননিসায় ভর্তি বাতিল: অসুস্থ হয়ে পড়ছেন শিক্ষার্থীরা


Ekushey Sangbad
নিজস্ব প্রতিবেদক
০৫:৪৯ পিএম, ১৬ মার্চ, ২০২৪
ভিকারুননিসায় ভর্তি বাতিল: অসুস্থ হয়ে পড়ছেন শিক্ষার্থীরা

ভিকারুননিসা নূন স্কুল থেকে ভর্তি বাতিল হওয়া ১৬৯ শিশু শিক্ষার্থী মানসিকভাবে ভেঙে পড়ছে বলে জানিয়েছেন অভিভাবকরা। তারা বলেছেন, অনেকে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি। কেউ আবার স্কুল ড্রেস পরে সারাক্ষণ বসে থাকছে, কাঁদছে। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে সরকারের সর্বোচ্চ মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন তারা।

শনিবার (১৬ মার্চ) রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) সংবাদ সম্মেলনে এমন দাবি করেন অভিভাবকরা।

তারা জানান, আড়াই মাস স্কুলে ক্লাস করার পর হঠাৎ ভর্তি বাতিল ও স্কুলে যাওয়া বন্ধ হওয়ায় শিশুরা এখন মানসিকভাবে ভেঙে পড়ছে। এসব শিশু শিক্ষার্থী মন-মননে তাদের স্কুলকে ধারণ করে নিয়েছে। কোন অপরাধে তাদের এখন ভিকারুননিসা স্কুল ছেড়ে যেতে হবে?

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুসারে ১৬৯ জনের ভর্তি বাতিল করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। তারা বেইলি রোডের মূল শাখা, আজিমপুর, ধানমন্ডি ও বসুন্ধরা শাখার শিক্ষার্থী।

২০২৪ শিক্ষাবর্ষে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তির ক্ষেত্রে বয়সের ঊর্ধ্বসীমা অনুসরণ না করে ১ জানুয়ারি ২০১৭ সালের পূর্বে জন্মগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের ভর্তি করানো হয়— এমন অভিযোগ তুলে হাইকোর্টের রিট করেন দুজন অভিভাবক। এরপর তাদের ভর্তি বাতিল করার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। যদিও এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেছেন অভিভাবকরা।

বিষয়টি ব্যাখ্যা করে সংবাদ সম্মেলনে অভিভাবক কায়সার হোসাইন বলেন, বয়সসীমার যে কথা এখন বলা হচ্ছে, সেটা ভর্তির সময় কেন বলা হয়নি? আমরা সব প্রক্রিয়া অনুসরণ করে অনলাইন আবেদন করে ভর্তি করিয়েছি। মাউশির লটারির ফলাফলেও তাদের নাম ছিল। সেই তালিকা থেকেই ভিকারুননিসা স্কুল বাচ্চাদের ভর্তি করানো হয়েছে। তিনমাস পর কেন ভর্তি বাতিল করা হলো?

তিনি জানান, এ শিশুরা ভিকারুননিসা ছাড়া রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল, উইলস লিটল ফ্লাওয়ার ও সাউথ পয়েন্ট স্কুলসহ বিভিন্ন স্কুলের ভর্তির সুযোগ পেয়েছিল। তখন এ বয়সের বিষয়টি বলা হলে বাচ্চাদের অন্য স্কুলে ভর্তি করাতাম।

অভিভাবক রওশন আরা আফরোজ বলেন, তিন মাস পর হঠাৎ করে ভর্তি বাতিল করায় এ বাচ্চাদের কোথায় ভর্তি করাবো? ঈদের পর অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা। এছাড়া বাচ্চাদের ভর্তি বাতিল হওয়ার পর স্কুলে যেতে পারছে না। তারা এক ধরনের ট্রমাটাইজ (মানসিক যন্ত্রণা) হয়ে গেছে। অনেক বাচ্চা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। বন্ধুদের সঙ্গে স্কুলে যেতে না পেরে অনেক পড়ালেখা করতে চাচ্ছে না। এ ধরনের পরিস্থিতিতে বাধ্য হয়ে আমরা আপনাদের (সাংবাদিকদের) সামনে এসেছি।

অভিভাবক মমতাজুর রায়হান বলেন, সব জায়গা থেকে বলা হচ্ছে এ বাচ্চাদের নাকি প্রভাব খাটিয়ে অবৈধভাবে, টাকার বিনিময়ে ভর্তি করানো হয়েছে, যা সম্পূর্ণ মিথ্যা। কারণ প্রথম শ্রেণিতে কেন্দ্রীয় লটারির মাধ্যমে ভর্তির যোগ্যদের তালিকা করা হয়। সেই তালিকা স্কুল কর্তৃপক্ষকে পাঠায় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর। তাই ভর্তিতে কোনো অনিয়ম করার সুযোগ নেই, এটা সবাই জানে। তারপরও আমাদের ওপর অভিযোগ আনা হচ্ছে, যা খুবই দুঃখজনক।

আরিফ হোসাইন নামে আরেক অভিভাবক বলেন, আমার মেয়ে কান্না করে বলতে থাকে, ‘আমি কী আর আমার স্কুলে যেতে পারবো না’, ‘বিনা দোষে আমার স্কুল গেট আমার জন্য বন্ধ কেন’, ‘আমরা এখানেই পড়বো’।

সংবাদ সম্মেলনে সৌমিত্র দে তপু, রওশন আরা আফরোজ, রাহাত আহমেদসহ অর্ধশতাধিক অভিভাবক উপস্থিত ছিলেন।

 

একুশে সংবাদ/স.ট.প্র/জাহা

 

Link copied!