ঢাকা শনিবার, ০১ এপ্রিল, ২০২৩, ১৮ চৈত্র ১৪২৯

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. রাজধানী
  4. সারাবাংলা
  5. আন্তর্জাতিক
  6. অর্থ-বাণিজ্য
  7. খেলাধুলা
  8. বিনোদন
  9. শিক্ষা
  10. তথ্য-প্রযুক্তি
  11. অপরাধ
  12. প্রবাস
  13. পডকাস্ট

আপনার সন্তানকে যেভাবে রোজা পালনে অভ্যস্ত করবেন


Ekushey Sangbad
নিজস্ব প্রতিবেদক
১০:০৫ পিএম, ১৮ মার্চ, ২০২৩
আপনার সন্তানকে যেভাবে রোজা পালনে অভ্যস্ত করবেন

শিশুরা সাধারণত অনুকরণ প্রিয়। তারা বড়দের দেখে শিখে। ঘরে মা-বাবাকে নামাজ পড়দে দেখলে শিশুরাও নিজের অজান্তেই রবের সামনে রুকু, সেজদায় মাথা নত করে। বছর ঘুরে রমজান মাস এলে মা-বাবা, পরিবারের অন্যদের দেখে শিশুরাও রোজা রাখতে আগ্রহী হয়ে উঠে। ভোর রাতে সেহরির খাবারে না ডাকলেও অনেক শিশু অভিমানও করে।

 

শিশুদের রোজা রাখার বিধান না থাকলেও শৈশব থেকে তাদের রোজায় অভ্যস্ত করা মুস্তাহাব বলে মত দিয়েছেন বিজ্ঞ আলেমরা। যেন প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার পর আগে থেকে অভ্যাসের কারণে রোজা রাখতে আর কষ্ট না হয়।

 

হাদিসে শিশুদের রোজা রাখতে উৎসাহিত করার বিভিন্ন ঘটনা পাওয়া যায়। এ বিষয়ে রুবাইয়ি বিনতে মুআওয়িজ (রা.) বলেন, ‘আশুরার দিন সকালে রাসুল (সা.) আনসারদের সব পল্লীতে এই নির্দেশ দিলেন, যে ব্যক্তি রোজা পালন করেনি, সে যেন দিনের বাকি অংশ না খেয়ে থাকে; আর যারা রোজা রেখেছে, সে যেন রোজা পূর্ণ করে।

 

পরবর্তী সময়ে আমরা ওই দিন রোজা রাখতাম এবং আমাদের সন্তানদের রোজা রাখাতাম। আমরা তাদের জন্য পশমের খেলনা তৈরি করে দিতাম। তাদের কেউ খাবারের জন্য কাঁদলে তাকে ওই খেলনা দিয়ে ভুলিয়ে রাখতাম। আর এভাবেই ইফতারের সময় হয়ে যেত।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১৯৬০)

 

আলেমরা শিশুদের রোজায় অভ্যস্ত করতে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বনের কথা বলেন—


১. শিশুদের কাছে রোজার ফজিলত সম্পর্কিত হাদিসগুলো তুলে ধরতে হবে। তাদের জানাতে হবে সিয়াম পালন জান্নাতে প্রবেশের মাধ্যম। জান্নাতের একটি দরজার নাম হচ্ছে আর-রাইয়্যান। এ দরজা দিয়ে শুধু রোজাদাররা প্রবেশ করবে।

 

২. প্রথমদিকে দিনের কিছু অংশে রোজা পালন করানো। ক্রমান্বয়ে সেই সময়কে বাড়িয়ে দেয়া।

 

৩. একেবারে শেষ সময়ে সেহরি গ্রহণ করা। এতে করে তাদের জন্য দিনের বেলায় রোজা পালন সহজ হবে।

 

৪. শিশুরা রোজা রাখলে প্রতিদিন বা প্রতিসপ্তাহে পুরস্কার দেওয়া। এতে তারা রোজা পালনে উৎসাহিত হবে।

 

৫. ইফতার ও সেহরির সময় পরিবারের সব সদস্যের সামনে তাদের প্রশংসা করা। যাতে তাদের মানসিক উন্নয়ন ঘটে।

 

৬. যার একাধিক শিশু রয়েছে তাদের মধ্যে প্রতিযোগিতার মনোভাব সৃষ্টি করা। তবে খুবই সতর্কতার সঙ্গে খেয়াল রাখতে হবে, যাতে প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়া শিশুটির প্রতি কঠোরতা প্রদর্শন করা না হয়।

 

৭. যেসব পরিবারের শিশুরা রোজা রাখে তাদের বাসায় বেড়াতে যাওয়ার জন্য দিনে বা রাতের কিছু সময় নির্দিষ্ট করে নেওয়া। যাতে তারা সিয়াম পালন অব্যাহত রাখার প্রেরণা পায়।

 

একুশে সংবাদ/এসএপি