AB Bank
ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী
ঈদযাত্রা

বাস ও ট্রেনে ট্রেনে স্বাচ্ছ্যন্দেই বাড়িরপানে যাত্রীরা


Ekushey Sangbad
মুহাম্মদ আসাদ
০৬:০৪ পিএম, ১৭ এপ্রিল, ২০২৩
বাস ও ট্রেনে ট্রেনে স্বাচ্ছ্যন্দেই বাড়িরপানে যাত্রীরা

পরিবারের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে সবাই নাড়ির টানে গ্রামের বাড়ি যান। এ সময় বাস, লঞ্চ, রেলের সঙ্গে আকাশ পথেও বিমানের টিকিট পাওয়া যেন সোনার হরিণ হয়ে ওঠে। ঈদযাত্রার চিরচেনা ভোগান্তি এড়াতে রাজধানীর ঢাকার কর্মজীবীদের অনেকেই পরিবার-পরিজনকে গ্রামে পাঠিয়ে দিতে শুরু করেছেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছুটি ঘোষণার পর থেকে ঢাকা ছাড়তে শুরু করেছেন হাজারও মানুষ।

 

ঈদের কয়েকদিন বাকি। প্রতি বছর ঈদে গ্রামে ফেরার সময় সড়ক, নৌ, রেল পথে ভ্রমণে ভোগান্তিতে পড়তে হয়। মহাসড়কে যানজট, ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়, লঞ্চের ভিড়ে চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়। ঘরে ফেরার কষ্ট কিছুটা কমাতে ইতোমধ্যেই কর্মজীবীদের অনেকেই তাদের পরিবার-পরিজনকে গ্রামে পাঠাতে শুরু করেছেন। রাজধানীর গাবতলী-মহাখালী বাস টার্মিনাল, কমলাপুর রেলস্টেশনে এমন চিত্রই দেখা যাচ্ছে।

 

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, অনেকেই তাদের স্ত্রী-সন্তানকে বাসে তুলে দিতে টার্মিনালে এসেছেন; ট্রেনে কমলাপুরে হাজির হয়েছেন। তবে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে যাত্রীদের উপস্থিতি ছিল কম।

 

ঈদ উপলক্ষে বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। টিকিটের জন্য রাজধানীর বাস টার্মিনালে যাত্রীদের স্বাভাবিক চাপ রয়েছে। প্রতিটি টিকিটে ৫০ থেকে ১০০ টাকা বাড়ানো হয়েছে। সোমবার রাজধানীর সায়েদাবাদ বাস টার্মিনালে সরেজমিন গিয়ে বিভিন্ন কাউন্টারে খোঁজ নিয়ে এই তথ্য জানা গেছে। বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি চলবে ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত।

 

লঞ্চের দক্ষিণাঞ্চলে যাত্রা ও ফিরতি টিকিট বিক্রি চলছে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল যাত্রী পরিবহণ সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, ১৭ এপ্রিল থেকে লঞ্চের কেবিনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে। ২৭ থেকে ৩০ রমজানের টিকিট যাত্রীরা অগ্রিম সংগ্রহ করতে পারবেন। তবে ডেকের যাত্রীরা যাত্রার দিনেই টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন বলে জানান তিনি। এবারের ঈদযাত্রায় যাত্রীদের জন্য ভাড়া বাড়ছে না বলেও জানিয়ে বলেন, পদ্মা সেতু চালু হওয়ার কারণে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের যাতায়াত সহজ হয়েছে। ভাড়া বাড়ানোর কোনো সুযোগ নেই।


সোমবার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, সারিবদ্ধভাবে প্লাটফর্মে প্রবেশ করছেন টিকিটধারীরা। যাদের টিকিট নেই,তাদের প্লাটফর্মে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না।

 

এবারের ঈদযাত্রায় টিকিট ব্যবস্থা অনলাইনে করায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট কাটার কোনো ভোগান্তি ছিল না। তবে যারা অনলাইনে টিকিট কাটতে পারেননি, তাদের জন্য স্টেশনে স্ট্যান্ডিং টিকেট কাটার ব্যবস্থা করছে।  

 

তবে সেখানেও নেই ভিড় বা কালোবাজারি। যাত্রীরা সহজেই টিকিট কেটে ট্রেনে ভ্রমণ করতে পারছেন।

 

প্লাটফর্মে প্রবেশ করলে দেখা যায়,অতিরিক্ত কোনো ভিড় বা হট্টগোল নেই। টিকিটধারী যাত্রীরা নির্ধারিত ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছেন। সকাল থেকে এখন পর্যন্ত ট্রেনের শিডিউলে তেমন কোনো বিপর্যয় ঘটেনি।

 

কথা হয় রাজশাহীগামী যাত্রী সজিবের সাথে। এবারের ঈদযাত্রার অভিজ্ঞতার প্রশ্নে তিনি বলেন,বিগত সময়ের চাইতে এবারের ঈদযাত্রা বেশ ভালো।আমি অনলাইনে দুটো টিকিট কেটেছি। ফলে সারাদিন লাইনে দাঁড়াতে হয়নি কিংবা কালোবাজার থেকে অতিরিক্ত মূল্যে টিকিট কিনতে হয়নি। এছাড়া এবার অতিরিক্ত মানুষেরও চাপ নেই।


চট্টগ্রামগামী যাত্রী ফয়সাল মাহমুদ বলেন, অনলাইনে টিকিট সিস্টেম করার ফলে আমাদের ভোগান্তি অনেক কমে গেছে। আগে সারাদিন লাইনে দাঁড়িয়েও টিকিট মিলতো না। এখন ঘরে বসেই টিকিট কাটছি। আবার অনলাইনে যারা টিকিট কাটতে পারেনি তাদের জন্য স্ট্যান্ডিং টিকেটের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ফলে সার্বিকভাবে এবারের ট্রেনের সিস্টেম জনবান্ধব হয়েছে।

 

কথা হয় চাঁপাইনবাবগঞ্জগামী যাত্রী ইব্রাহিম খলিলের সাথে। তিনি বলেন,আমি অনলাইনে টিকিট কাটতে পারিনি।প্রথমদিকে মন খারাপ হলেও পরে শুনলাম স্ট্যান্ডিং টিকেটের ব্যবস্থা রয়েছে। একটা আশঙ্কা ছিল যে স্ট্যান্ডিং টিকেট নিয়ে ভোগান্তি পোহাতে হয় কি না। তবে এমন কিছুই হয়নি। সরাসরি স্টেশনে এসে টিকিট কাটতে পেরেছি।

 

সিলেটগামী যাত্রী বশির আহমেদও স্ট্যান্ডিং টিকেট কেটেছেন। টিকিট কাটতে কোনো ভোগান্তি হয়েছে কি না এমন প্রশ্নে তিনি বলেন,তেমন কোনো ভোগান্তি হয়নি। স্টেশনে এসে সহজেই টিকিট কাটতে পেরেছি। কোনো দালালের কাছ থেকে টিকিট কিনতে হয়নি।

 

এবারের ঈদযাত্রায় টিকিট ছাড়া ট্রেনে ভ্রমণের কোনো সুযোগ নেই, এমনকি ট্রেনের ছাদে চড়েও এবার ভ্রমণে রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। কমলাপুর স্টেশন থেকে জয়দেবপুর স্টেশন পর্যন্ত ট্রেনের ছাদে যাত্রা প্রতিহত করতে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ তৎপর রয়েছে, এমনটাই জানান কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের ব্যবস্থাপক মাসুদ সারওয়ার।

 

তিনি বলেন, এবার ছাদে কোনো যাত্রী নেওয়া হবে না। এ ব্যাপারে আমরা কড়াকড়ি নজর রাখছি। কমলাপুর থেকে জয়দেবপুর পর্যন্ত আমরা নজর রাখছি। কেউই বিনা টিকিটে বা ছাদে যাতায়াত করতে পারবে না। যাত্রীরা যদি এই বিষয়ে সচেতন হন,আশা করছি এ বিষয়ে আমরা সফল হবো।


এদিকে, আজ (সোমবার) থেকে ঈদের বিশেষ ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। বাস ও ট্রেনে  যাত্রীর  ট্রেন চাপ নেই। ঈদযাত্রায় যাত্রীদের চাপ সামলাতে ৯ জোড়া বিশেষ ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে নিয়মিত চলাচলকারী আন্তঃনগর ট্রেনগুলোর সাপ্তাহিক ছুটি বাতিল করা হয়েছে। ভোগান্তি দূর করতে প্রথমবারের মতো এবারের ঈদযাত্রায় রেলের শতভাগ টিকিট অনলাইনে বিক্রি হয়েছে। যাত্রীরা ঘরে বসে স্বস্তিতে টিকিট কাটতে পেরেছেন। একই সঙ্গে টিকিট কালোবাজারিও নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

 

এ বিষয়ে রেলপথ মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, স্টেশনগুলোতে আমরা এক্সেস কন্ট্রোল করেছি কাজেই টিকিটবিহীন কোনো যাত্রী স্টেশনে প্রবেশ করতে পারবে না।   ধর্মীয় উৎসবে আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে দেখা করার জন্য এবং গ্রামের বাড়িতে ঈদ কাটানোর উদ্দেশ্যে কয়েক লাখ মানুষ ঢাকা শহর থেকে গ্রামে আসা-যাওয়া করে। এ জন্য সব ধরনের কার্যক্রম গ্রহণ ও পরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হয়েছে।

 

ইতোমধ্যে দেশের অভ্যন্তরীণ আকাশ পথের স্বল্পমূল্যের বিমানের টিকিট শেষ। এখন বাড়তি দামে কিছু টিকিট বিক্রি হচ্ছে। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্স, নভোএয়ার ও এয়ারঅ্যাস্ট্রা ঢাকা-সৈয়দপুর, ঢাকা-রাজশাহী, ঢাকা-যশোর, ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-কক্সবাজার, ঢাকা-সিলেট ও ঢাকা-বরিশাল রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করে। 

 

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঈদ ঘনিয়ে এলে তারা ঈদ যাত্রীদের পৌঁছে দিতে একাধিক ফ্লাইট বৃদ্ধি করবেন।

 

একুশে সংবাদ/এসএপি

Link copied!