ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর, ২০২০, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
Ekushey Sangbad
Janata Bank
করোনাভাইরাস মোকাবিলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ৩১ নির্দেশনা

রির্পোটারগণ হচ্ছেন সংবাদমাধ্যমের প্রাণ : টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী


Ekushey Sangbad
নিজস্ব প্রতিবেদক
নভেম্বর ১০, ২০২০, ০৭:১৪ পিএম
রির্পোটারগণ হচ্ছেন সংবাদমাধ্যমের প্রাণ : টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, সংবাদপত্র জাতির নেতৃত্ব দেয় আর রির্পোটারগণ হচ্ছেন সংবাদমাধ্যমের প্রাণ। প্রযুক্তির অভাবনীয় পরিবর্তণে সংবাদ প্রকাশের প্রচলিত মাধ্যমসমূহের পরিবর্তন হলেও সাংবাদিকদের প্রয়োজনীয়তা শেষ হবে না। তিনি বলেন, আগামীদিনের রূপান্তরের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ডিজিটাল যুগের উপযোগী গণমাধ্যম প্রশিক্ষণের পাশাপাশি সাংবাদিকদের জন্য প্রযুক্তির অবাধ সুযোগ তৈরি করা অপরিহার্য।

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে মন্ত্রীর উদ্যোগে বিটিসিএল প্রদত্ত ফ্রি-ওয়াই ফাই জোনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি‘র সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদ এর সভাপতিত্বে  এবং সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ চৌধুরী`র উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে বিটিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. রফিকুর মতিন, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি‘র সাবেক সভাপতি সাইফুল ইসলাম, আইএসপিএবি‘র সভাপতি এমএ হাকিম, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি‘র সহ-সভাপতি নজরুল কবির, বিটিসিএল এর জিএম মির মোর্শেদ প্রমূখ বক্তৃতা করেন।

দেশে আশির দশকে কম্পিউটারে পত্রিকা এবং প্রথম অনলাইন বাংলা সংবাদ সংস্থা প্রকাশনার জনক জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেন, যাত্রার শুরুতে কাজ করতে করতে প্রযুক্তি শিখানো হয়েছে। নতুন প্রজন্মকে প্রযুক্তি শিখিয়ে দিতে হয় না। তাদেরকে একটু গাইড করতে পারলেই তারা সহজেই প্রযুক্তি আয়ত্বে আনতে সক্ষম হয়। সত্তরের দশকের সাংবাদিক সংগঠনের নেতা জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, রোবটিকস, বিগডাটা এবং আইওটি প্রযুক্তি যুগে আমরা প্রবেশ করে ফেলেছি। এরই ধারাবাহিকতায় অনেক কিছুর মত গণমাধ্যমের আমুল পরিবর্তন হবে। সেই লক্ষ্যে বিদ্যমান দক্ষতার স্তর বহুগুণ বাড়িয়ে তোলার প্রয়োজন হবে। তিনি ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিকে এ ব্যাপারে উপযোগী প্রশিক্ষণসহ সম্ভাব্য সব ধরণের সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস প্রদান করে বলেন, সাংবাদিক সমাজ হচ্ছেন সবচেয়ে অগ্রসরমান সমাজ। তারা মানুষকে আলোর পথ দেখায়, সমাজ পরিবর্তণে ভূমিকা রাখেন। তাদেরকে সহযোগিতা করতে আমাদের প্রত্যেককেই এগিয়ে আসতে হবে। আগামী দিনের প্রস্তুতি না থাকলে আমাদের অনেক ক্ষতি হবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু জীবিত থাকলে আরও ২৫ বছর আগে বাংলাদেশ পৃথিবীর কাছে একটি আদর্শ দেশ ও জাতি হতো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে গত এগারো বছরে বাংলাদেশ গর্বের সাথে বিশ্বে উপস্থাপিত হয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি বিশ্বে আজ একটি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। অতীতের তিনটি শিল্প বিপ্লব মিস করেও বাংলাদেশ আজ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সক্ষমতা অর্জন করেছে। কোভিড পরিস্থিতিতে ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচির সফলতার বার্তা দিন বদলের সনদের সমালোচকদেরকে পর্যন্ত বিস্মিত করেছে। মন্ত্রী বিটিসিএলকে জনবান্ধব এবং আধুনিকায়নে গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচি তুলে ধরে বলেন, প্রযুক্তির সুযোগ কাজে লাগিয়ে বিটিসিএলকে বহুমাত্রিক ডিজিটাল প্রযুক্তি সেবা প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলার কার্যক্রম ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে। মানুষ খুব সহসাই এর ব্যাপক সুফল পাবেন।

বক্তারা রিপোর্টারদের জন্য ফ্রি-ওয়াই ফাই জোন প্রতিষ্ঠাকে সাংবাদিকদের পেশাগত উৎকর্ষতার জন্য সরকারি সহযোগিতার একটি উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হিসেবে উল্লেখ করেন। তারা আশির দশকে সাংবাদিকদের কম্পিউটার শেখানো এবং কম্পিউটারে পত্রিকা প্রকাশে মন্ত্রীর অবদান শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।তার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির জন্য একটি আধুনিক কম্পিউটার ল্যাব প্রতিষ্ঠায় মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

পরে মন্ত্রী ৫০ এমবিপিএস ক্ষমতা সম্পন্ন বিটিসিএল এর ফ্রি ওয়াই ফাই জোন উদ্বোধন করেন।

একুশে সংবাদ/এআরএম