AB Bank
ঢাকা সোমবার, ২৭ মে, ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

অহেতুক দুশ্চিন্তার কারণ ও মুক্তি পাওয়ার উপায়!


Ekushey Sangbad
লাইফস্টাইল ডেস্ক
০৫:৩৭ পিএম, ১৫ মে, ২০২৪
অহেতুক দুশ্চিন্তার কারণ ও মুক্তি পাওয়ার উপায়!

আমরা অনেকেই নানা কারণে দুশ্চিন্তা করি।অতিরিক্ত কল্পনা, অতিরিক্ত টেনশন এবং অহেতুক উদ্বেগে ভুগি। বর্তমান সময়ে আমরা দুশ্চিন্তামুক্ত থাকতে পারছি না। কারণ চারপাশেই ঘুরে বেড়াচ্ছে নানা ঘটনা। তাইতো নিজের উপর এবং পরিবারের উপর নানা দুশ্চিন্তা এসে ভর করবেই। কিন্তু জানেন কি, এই দুশ্চিন্তাই নানা রকম মারাত্মক রোগ ডেকে আনতে পারে।

মন ভালো থাকলে যেমন বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফলতা আসে, ঠিক তেমনই মন খারাপের প্রভাব নিত্যকাজের ওপর পড়ে। মানুষের সবচেয়ে বড় বন্ধু এবং শত্রু মন, যা সমস্যা তৈরি ও সমাধানের এক বিস্ময়কর হাতিয়ার।

চলুন জেনে নেয়া যাক সেগুলো-  

দুশ্চিন্তা হওয়ার কারণ:  নানা কারণেই দুশ্চিন্তা  হতে পারে। তেমনি কিছু কারণ নিয়ে আমরা আজকে আলোচনা করবো।

> আপনার অতিপ্রিয় কিংবা কাছের কারো সাথে মনোমালিন্য হলে আপনি সারাক্ষণই সেটা নিয়ে ভাবতে থাকেন। আশেপাশের অন্যান্যরা আপনাকে নিয়ে কী ভাবছে সেটা নিয়েও আপনি দুশ্চিন্তা করেন।

> ঝগড়া কিংবা তর্কে হেরে গেলে আপনি সেটা নিয়ে অতিরিক্ত আত্মগ্লানিতে ভোগেন। রাতভর চিন্তা করতে থাকেন যে কী করলে বা কী বললে আপনি তর্কে কিংবা ঝগড়াটিতে জিতে যেতেন।

> আপনি সারাক্ষণই এটা নিয়ে আতঙ্কিত থাকেন যে হয়তো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এসে পড়েছে।

> আশেপাশের কেউ কিছু বললে আপনি সেটার নেপথ্যের কারণ খুঁজতে থাকেন এবং এতে আপনার দুশ্চিন্তা বাড়ে।

> আপনার সহকর্মী, বন্ধু কিংবা অন্যান্যদের চেয়ে আপনি কীভাবে বেশি ভালো করবেন সেটা নিয়েও আপনার চিন্তা আসে।

> যদি, কিন্তু, অথচ এর মায়াজালে আবদ্ধ হয়ে জর্জরিত হয়ে যান আপনি।

> জীবনে যা কিছু ভুল করেছেন তা বারবার মনে করে পীড়ায় ভুগতে থাকেন।

> অতীতের ভুলত্রুটির কথা আপনি কখনোই ভুলতে পারেন না যা আপনার দুশ্চিন্তার এক অন্যতম কারণ।

দুশ্চিন্তা কমাতে করণীয়


> নতুন স্বাস্থ্যকর অভ্যাসগুলোর সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে যান। ‘নিউ নর্মাল জীবন’কে মেনে নিন। যত তাড়াতাড়ি মানতে পারবেন, তত ভালো থাকবেন।

> মনের উপর চাপ পড়তে দেবেন না। সব সময় মন হালকা রাখার উপায় খুঁজে নিন। বই পড়া হোক কি গান শোনা, ঘরে বসে সিনেমা দেখা বা হালকা ব্যায়াম করা যেকোনো পথ বেছে নিন।

> সব সময় খবর, সিরিয়াস টক শো দেখবেন না। কমেডি শো, কার্টুন এসব দেখতে পারেন টিভিতে।

> ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও স্থুলতার সমস্যা থাকলে নিয়ম মেনে শরীরচর্চা করুন।

>সমস্যার কথা চিন্তা না করে এর সমাধানের পথ খুঁজুন। তাহলে আপনার সমস্যার সমাধানও হবে এবং আপনিও চিন্তামুক্ত হবেন।

>যেটা আপনার বশে নেই সেটা নিয়ে চিন্তা করতে যাবেন না। নিজেকে বোঝানোর চেষ্টা করুন যে, যা আপনার নিয়ন্ত্রণের বাইরে তা কখনোই আপনার হবে না। এতে আপনার চিন্তার পাহাড় নিজে নিজেই কমে যাবে।

>কোন পরিস্থিতিতে আপনার অবস্থা কেমন হবে সেটা আপনি নিজেই ভালো করে বুঝবেন। নিজের সমস্যা জানতে পারলে আপনি আগেভাগেই সতর্ক হয়ে যাবেন এবং ভবিষ্যতে আপনাকে পীড়া দেয় এমন কাজ আপনি আর করবেন না।
>মনে কথা জমিয়ে রাখা দুশ্চিন্তা সৃষ্টির অন্যতম একটি কারণ। যখনই মনে হবে, মনে কথা জমে যাচ্ছে তখনই সব কথা খুলে বলুন কাছের মানুষটিকে। কোনো সমস্যা মনে হলে তার মতামত নিন। এতে আপনার নিজেকে যথেষ্ট ভারমুক্ত মনে হবে।

চিন্তার ব্যাপারে বিশেষজ্ঞদের মতামত হলো, অতিরিক্ত চিন্তাভাবনা আমাদের মানসিক চাপ তৈরি করে। অল্পকিছু চিন্তা দিয়ে তা শুরু হয়, এক পর্যায়ে চলে যায় বহুদূর। তবে এসব অতিরিক্ত চিন্তা দূর করে মনকে শান্ত করার কিছু প্রাচীন জাপানি কৌশল রয়েছে। সেগুলো মানলে পাবেন অতিরিক্ত চিন্তা থেকে মুক্তি।

দুশ্চিন্তা কখনোই স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়। যখনই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হবেন তখন নিজেকে অন্য দিকে নিয়ে নিজেকে সেই কাজের সাথে ব্যস্ত রাখুন। কী হলো তা নিয়ে না ভেবে সামনে এগিয়ে যান। ‘যা হয়েছে ভালোর জন্যই হয়েছে’ এই চিন্তাটি আপনাকে অনেকটা ভারমুক্ত করবে। এভাবে আপনার দুশ্চিন্তা ছেঁড়ে ফেলুন এবং নিজেকে চিন্তামুক্ত রাখুন। ভালো থাকুন নিজের জন্য ও পরিবারের জন্য।  


একুশে সংবাদ/এস কে  

Link copied!