AB Bank
ঢাকা রবিবার, ২১ জুলাই, ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী
এলসি জটিলতা

‘রমজানে পণ্যের দাম আরও বাড়বে’


Ekushey Sangbad
নিজস্ব প্রতিবেদক
০৫:১৬ পিএম, ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
‘রমজানে পণ্যের দাম আরও বাড়বে’

ডলারের মূল্যবৃদ্ধির কারণে এবার রোজায় আমদানি করা পণ্যের দাম প্রায় ৩০ শতাংশ বেশি থাকবে বলে জানিয়েছে সরকারি সংস্থা বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশন। তবে সরকারের আরেকটি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) বলছে, রোজার এক মাস ১৭ দিন আগেই গত বছরের তুলনায় আমদানি করা পণ্যের দাম গড়ে ৫৯ শতাংশ বেশি। তবে আদা সর্বোচ্চ ১১১ শতাংশ বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর ব্যবসায়ীরা বলছেন, আমদানিতে এলসি জটিলতা দূর করা না গেলে রমজানে পণ্যের দাম আরও বাড়বে।

 

এদিকে এমন পরিস্থিতিতে ক্রেতার কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়তে শুরু করেছে। তারা বলছে, রোজা এলেই সব ধরনের পণ্যের দাম বাড়ে। এবারও সেটাই করা হচ্ছে। তবে গত বছরের তুলনায় এবার সব ধরনের পণ্যের দাম দ্বিগুণ থেকে তিনগুণ বেড়েছে। কিন্তু আয় বাড়েনি।

 

সম্প্রতি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের সরবরাহ ও মূল্য স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। সভায় আমদানি পণ্যের দাম বাড়ার বিষয়ে ট্যারিফ কমিশনের উপ-পরিচালক মো. মাহমুদুল হাসান জানান, ‘ডলারের মূল্যবৃদ্ধির কারণে এবার রোজায় আমদানি করা পণ্যের দাম প্রায় ৩০ শতাংশ বেশি থাকবে। আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের দাম না বাড়লেও দেশে এমন পরিস্থিতি বিরাজ করবে। এর বেশি বাড়বে না। ’

 

কিন্তু টিসিবির বৃহস্পতিবারের মূল্য তালিকা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, বছরের ব্যবধানে আমদানি করা প্রতি কেজি রসুন ৬৩.৬৪ শতাংশ বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি আমদানি করা শুকনা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ৬৩.৯৩ শতাংশ বেশি দরে। পাশাপাশি প্রতি কেজি আমদানি করা আদা সর্বোচ্চ ১১১.১১ শতাংশ, জিরা ৯৪.৪৪ শতাংশ, লবঙ্গ ৩৯.৫৩ শতাংশ, গুঁড়া দুধ ৪০ শতাংশ, চিনি ৫০.৩৩ শতাংশ, অ্যাঙ্কর ডাল ৪৭.৯৬ শতাংশ বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর ছোলা প্রতি কেজি ১৬.৬৭ শতাংশ বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে। গড়ে ৫৯ শতাংশ বেশি।

 

When asked, Consumers Association of Bangladesh (CAB) president Golam Rahman said, ‍‍`Compared to last year, the prices of all types of products are higher this year. There are some logical reasons for that too. But there are irrational reasons too. Among them is the tendency of traders to make excessive profits. When fasting comes, they create instability in the market. Two months before the start of fasting, the price of goods increases. He did that this time too. By holding the customer hostage, they have started looting huge profits. It seems that the increase in the price of goods during this fasting period will make the buyer hungry. So it will be difficult to keep the price normal if we don‍‍`t take initiative from now.‍‍`

 

According to TCB sources, imported ginger is being sold at Tk 280 per kg in the market, which was sold at Tk 120 before fasting at the same time last year. Imported garlic is being sold at Tk 200 per kg, which was sold at Tk 120 at the same time last year. Dry chillies are being sold at Tk 550 per kg, which was Tk 350 earlier. Turmeric was sold at Tk 200 per kg, which was Tk 180 earlier. Cumin, which was sold at Tk 420 per kg before fasting last year, is now being sold at Tk 750. Cinnamon is being sold at Tk 450 per kg at Tk 380. Cloves which were sold at Tk 1150 are currently selling at Tk 1600. Last year before fasting, packed milk powder was sold at Tk 620-680 per kg. But currently selling at 820-900 taka. Sugar sold at Tk 78 per kg is now selling at Tk 120. Anchor dal was sold at Tk 75 per kg, which was Tk 50 earlier. 90 rupees per kg of gram sold,

 

কাওরান বাজারে নিত্যপণ্য কিনতে আসা মো. দুলাল বলেন, ‘বাজারে সব বিক্রেতা এক। তারা ক্রেতার পকেট কাটতে বসেছে। এখন বাজারে সব ধরনের পণ্যের দামে আগুন। রোজার এতদিন আগেই এমন অবস্থা বিরাজ করছে। রমজান মাস যত ঘনিয়ে আসবে পণ্যের দামের পারদ আরও বাড়তে থাকবে। কিন্তু আমাদের আয় আর বাড়বে না। তাই মনে হচ্ছে রোজায় পণ্য কিনতে হিমশিম খেতে হবে। তাই এখন থেকেই বাজারে তদারকি জোরদার করতে হবে। অসাধু বিক্রেতাকে শাস্তির আওতায় আনতে হবে।’

 

খুচরা বিক্রেতারা জানান, পণ্যের দাম বাড়ানোর পেছনে আমরা দায়ী নই। আমাদেরই বেশি দামে পণ্য কিনতে হচ্ছে। বেশি দামে এনে ক্রেতার কাছে বেশি দামেই বিক্রি করে দিতে হচ্ছে। দাম যা বাড়ানোর আমদানিকারকরা বাড়াচ্ছে। কারসাজি যা করার তারাই করে।

 

রাজধানীর শ্যামবাজারের পণ্য আমদানিকারকরা জানান, আদা-রসুন আমদানিতে এলসি স্বাভাবিক না হলে দাম আরও বাড়বে। ডলারের মূল্য অনেক বেড়েছে। ব্যাংকে এলসি খোলা যাচ্ছে না। অনেক জটিল হয়ে গেছে। এ অবস্থায় আসন্ন রমজান মাস সামনে রেখে এলসি জটিলতা দূর করাসহ শুল্ক প্রত্যাহার করে পণ্য আমদানি বাড়ানোর সুযোগ দিতে হবে। এখন থেকে যদি পণ্য আমদানি করা না যায় তাহলে রমজানে পণ্যের দাম আরও বাড়বে।

 

এ বিষয়ে ক্যাবের সহ-সভাপতি নাজের হোসাইন বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা দাম বাড়ানোর জন্য একেক সময় একেক বাহানা সামনে নিয়ে আসেন। একসময় বলেন, ডলার সমস্যা। আবার এর মধ্যে বলেছেন, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ পরিস্থিতি দাম বাড়াচ্ছে। এখন আবার এলসি সমস্যাকে অজুহাত হিসাবে এনেছেন। তিনি বলেন, রমজানের জন্য যেসব নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের প্রয়োজন, সেগুলো ইতোমধ্যেই এলসি করা হয়েছে। কারণ পণ্য আসার দুই থেকে তিন মাস আগে এলসি করতে হয়। সে অনুসারে রমজানের জন্য প্রয়োজনীয় পণ্য ইতোমধ্যেই বন্দরে এসে পৌঁছেছে। এলসি ইস্যুটা একটা অজুহাত মাত্র।’

 

জানতে চাইলে বাজার তদারকি সংস্থা জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, ‘আসন্ন রমজান মাসে বাজার মনিটরিং অব্যাহত আছে। তা আরও জোরদার করা হবে। প্রতি বছর রোজায় কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর কারণে বাজার অস্থির হয়ে যায়। আসন্ন রমজান মাসে এসব অসাধু ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে থাকবে ভোক্তা অধিদপ্তর।’

 

একুশে সংবাদ/য/এসএপি

Link copied!