AB Bank
ঢাকা বুধবার, ২২ মে, ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

মধুমতিতে জেলেদের জালে ধরা পড়ল ২ ডলফিন


Ekushey Sangbad
জেলা প্রতিনিধি, ফরিদপুর
০৩:৩৫ পিএম, ১৪ মে, ২০২৪
মধুমতিতে জেলেদের জালে ধরা পড়ল ২ ডলফিন

ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গায় মধুমতি নদীতে ধরা পড়ছে বিলুপ্ত হতে চলা দুটি গাঙ্গেয় শুশুক। সোমবার (১৩ মে) দুপুর দেড়টার দিকে উপজেলার পাচুড়িয়া ইউনিয়নের চর নারাণদিয়া ঘাট এলাকায় জেলেরা শুশুক দুটি নিয়ে আসেন। এরপর ট্রলারযোগে তারা সেটি অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায় বলে জানা গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও প্রত্যক্ষদর্শী আলী হাসান নামে এক যুবক বলেন, ‘আমরা কয়েকজন মিলে মধুমতী নদীর চর নারাণদিয়া ঘাটে গোসল করতে গিয়ে শুশুক দুটি দেখতে পাই। জেলেদের জালে ধরা পড়া শুশুক দুটি দেখতে সেখানে অনেক মানুষ ভিড় করে। একেকটা শুশুকের ওজন দুই থেকে আড়াই মণ হবে। পরে শুশুক দু’টি জেলেরা ট্রলারে করে কোথায় নিয়ে গেছে তা জানি না।’

পাচুড়িয়া ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার মো: আলমগীর হোসেন বলেন, ‘দক্ষিণ চর নারাণদিয়া এলাকার তরিকুল শিকদার নামে একজন জেলের জালে শুশুক ধরা পড়ে। একটি তারা নিয়ে গেছেন। আরেকটি নাকি জেলেরা নদীতে ছেড়ে দিয়েছেন।’

ওই ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার বকুল শিকদার বলেন, ‘দক্ষিণ চরনারানদিয়া গ্রামের আনোয়ার শিকদারের ছেলে তরিকুল শিকদার নামে এক ব্যক্তি একটি মরা শুশুক নিয়ে এসে কেটেকুটে জ্বাল দিয়ে তেল বানাবে বলে জানতে পেরেছি।’

আলফাডাঙ্গা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা (অ. দা.) এস এম লুৎফর রহমান সাংবাদিককে বলেন, ‘বিষয়টি জানা নেই। কেউ জানায়ওনি। আপনার মাধ্যমে জানতে পারলাম।’

শুশুক বা ডলফিন অত্যন্ত উপকারী ও নিরীহ একটা প্রাণী উল্লেখ করে এই মৎস্য কর্মকর্তা বলেন, ‘এ প্রাণী মারা আইনগত অপরাধ। এ বিষয়ে খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।’

জানা যায়, বিশ্বের বেশিভাগ দেশ থেকে বিলুপ্ত ডলফিনের মহাবিপন্ন এ প্রজাতি সবচেয়ে বেশি এখনো টিকে আছে বাংলাদেশের নদ-নদীতে। নদী ও প্রকৃতি রক্ষার একটি সূচক হিসেবে বিবেচনা করা হয় এই জলজ প্রাণীকে। তবে নিজ বসতি এলাকা বা নদ-নদীতে বেশ বিপদে রয়েছে এরা। নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষ প্রথা বা বিশ্বাসের অংশ হিসেবে ডলফিনের তেল ও অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করে থাকে। এটি করতে জেলেদের মাধ্যমে শুশুক ধরে বা মাছ ধরার সময় জালে আটকা পড়লে তা নিয়ে যান তারা। আবার অনেক ক্ষেত্রে মাছ ধরতে শুশুকের তেল ব্যবহার করা হয়।

এসব কারণে নদীতে গাঙ্গেয় শুশুক কমে আসছে ও হুমকির মুখে পড়ছে। ইতোমধ্যে গবেষকেরা জলাভূমির গুরুত্বপূর্ণ ও বিলুপ্তপ্রায় এ প্রাণীকে রক্ষায় জরুরি পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

 

একুশে সংবাদ/স.চ.প্র/জাহা 

Link copied!