AB Bank
ঢাকা সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

শরীয়তপুরে ইমামকে রাজকীয় বিদায়


Ekushey Sangbad
জেলা প্রতিনিধি,শরীয়তপুর
০৮:৪২ পিএম, ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
শরীয়তপুরে ইমামকে রাজকীয় বিদায়

শরীয়তপুরে দীর্ঘ ৩৫ বছর ইমামতি শেষে ঘোড়ার গাড়িতে করে রাজকীয় বিদায় দেয়া হয়েছে মসজিদের ইমাম হাফেজ ওয়াজ উদ্দিন শেখকে।

শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বাদ জুমার নামাজ শেষে মুসল্লি ও এলাকাবাসী মিলে প্রথমে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা দেন। এরপর নগদ ১ লাখ টাকা হাদিয়া ও বিভিন্ন উপহারসামগ্রী দিয়ে সুসজ্জিত একটি ঘোড়ার গাড়িতে উঠিয়ে তাকে নিজ বাড়ি পৌঁছে দেয়া হয়।

হাফেজ ওয়াজউদ্দিন শেখ (ইমাম) নড়িয়া ভোজেশ্বর ইউনিয়ন উপসী এলাকার মৃত রমিজউদ্দিন শেখের ছেলে।

এলাকাবাসী জানায়, নড়িয়া উপজেলার বিঝারী এলাকার কাপাশপাড়া বাইতূন নূর জামে মসজিদটি ১৮৭০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৮৪ সালে হাফেজ ওয়াজউদ্দিন শেখ যখন মসজিদে ইমামতি করতে আসেন তখন ছোট একটি টিনের ছাউনির মসজিদ ছিলো সেটি। তখন মাত্র ২২ মণ ধানের বিনিময়ে সেখানে ইমামতি শুরু করেন তিনি। একটানা ৩৫ বছর ইমামতি করে এখন তার বয়স ৭৫ বছর। দীর্ঘদিন ইমামতি শেষে বার্ধক্যের কারণে আজ তিনি অবসর নিলেন।

এমন বিদায়ী সংবর্ধনা পেয়ে হাফেজ ওয়াজউদ্দিন শেখ আবেগে আপ্লুত হয়ে বলেন, ‘আমি যখন এখানে আসি তখন মসজিদটি জানালা-কপাট ছাড়া ছোট একটি টিনের ঘর ছিল। আমি সামান্য একটি মাদুর বিছিয়ে থাকতাম। উঁই পোকা বিছানা খেয়ে ফেলতো। তবে আমার একটাই চিন্তা ছিল কীভাবে এলাকার মুসল্লিদের নিয়ে মসজিদটিকে সুন্দর করা যায়। পরে সবাইকে নিয়ে কাজ শুরু করি। বর্তমানে মসজিদটি এখন দোতলা হয়েছে। এখন আমার বয়স হয়ে যাওয়ায় আজ এই মসজিদ ছেড়ে বিদায় নিতে হচ্ছে। কিন্তু আমার মন চাইছে না বিদায় নিতে। এলাকার সবাই আমাকে অনেক সম্মান দেখিয়েছে। আল্লাহ তাদের সবাইকে ভালো রাখুক।’

স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল মান্নান চৌকিদার বলেন, হুজুর যখন আমাদের এখানে আসে তখন মসজিদটি জরাজীর্ণ ছিল। তাকে আমরা বেতন দিতে পারিনি, শুধু এলাকা থেকে ধান উঠিয়ে দিতাম। তারপরেও তার কোনো অভিযোগ ছিল না। আমাদের এলাকার সন্তানদের তিনি ইসলাম শিক্ষা দিয়েছেন। তিনি অনেক কষ্ট করে সেই মসজিদটিকে পাকা দোতলায় পরিণত করেছেন। আজ হুজুর চলে যাওয়াতে খুব কষ্ট পাচ্ছি।

মসজিদের সভাপতি রাশেদুজ্জামান চপল খান বলেন, ‘আজকের দিনটি আমাদের জন্য বেদনার। কেননা আমরা আমাদের আত্মার আত্মীয়কে বিদায় দিচ্ছি। যিনি দীর্ঘ ৩৫ বছর আমাদেরকে দ্বিনি শিক্ষায় আলোকিত করেছে। আমরা তার কাছে কৃতজ্ঞ। সৃষ্টিকর্তা তাকে সুস্থ রাখুন ভালো রাখুন এটাই আমাদের কামনা।’

 

একুশে সংবাদ/বিএইচ

Link copied!