AB Bank
ঢাকা শুক্রবার, ০১ মার্চ, ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

জুমার দিন দোয়া কবুলের দিন


Ekushey Sangbad
ধর্ম ডেস্ক
০৩:০২ পিএম, ১ ডিসেম্বর, ২০২৩
জুমার দিন দোয়া কবুলের দিন

প্রত্যেক মুসলমানের কাছে জুমার দিনটি পবিত্র। দিনটিকে মুসলমানদের জন্য সাপ্তাহিক ঈদ বলা হয়েছে। জুমার দিনে এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ সময় রয়েছে যখন বান্দার দোয়া আল্লাহ কবুল করেন।

সহিহ বুখারিতে উল্লেখ রয়েছে, জুমার দিনে এমন একটি মুহূর্ত রয়েছে, কোনো মুসলিম বান্দা যদি এ সময় নামাজে দাঁড়িয়ে আল্লাহর কাছে কিছু চায়, তাহলে তিনি তাকে অবশ্যই তা দান করেন।

বেশিরভাগ সাহাবি ও আলেমের মতে, জুমার দিন দোয়া কবুলের বিশেষ সময় হলো, আসরের পর থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত।

জাবের ইবনে আব্দুল্লাহ থেকে বর্ণিত রাসুল (সা.) বলেছেন, জুমার দিন এমন বারোটি মুহূর্ত রয়েছে, এমন কোনো মুসলিম বান্দা পাওয়া যাবে না, যে ওই মুহূর্তগুলোতে আল্লাহর কাছে কোন কিছু চাইবে, কিন্তু তাকে তা দেওয়া হবে না। তোমরা ওই মুহূর্তগুলোকে আসরের পর শেষ সময়ে অনুসন্ধান কর। (সুনান আন-নাসাঈ)

আবদুল্লাহ ইবনে সালাম (রা.) বলেন, একদিন রাসুল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বসে ছিলেন। আমি বললাম, আমরা আল্লাহর কিতাবে জুমার দিনের এমন একটি মুহূর্ত সম্পর্কে আলোচনা পেয়েছি, যে মুহূর্তে কোনো মুমিন বান্দা নামাজরত অবস্থায় আল্লাহর কাছে কিছু প্রার্থনা করলে তিনি তার প্রয়োজন পূরণ করেন।

আবদুল্লাহ বলেন, আল্লাহর রাসুল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) আমার দিকে ইশারা করে বললেন, সামান্য কিছু সময়। আমি বললাম, আপনি যথার্থই বলেছেন, সামান্য সময়ই। আমি বললাম, সেই মুহূর্ত কোনটি? তিনি বললেন, সেটি হলো, দিনের শেষ মুহূর্ত। আমি বললাম, তা তো নামাজের সময় নয়। তিনি বললেন, মুমিন বান্দা এক নামাজ শেষ করে বসে অন্য নামাজের প্রতীক্ষায় থাকলে সে নামাজের মধ্যেই থাকে। (সুনানে ইবনে মাজা)

তাই প্রত্যেক মুসলমানের উচিত আসরের পর থেকে মাগরিবের আগ পর্যন্ত দোয়া কবুলের জন্য প্রার্থনা করা, নিজের গুনাহের জন্য ক্ষমা চাওয়া। এ সময় নিজের অভাব, অভিযোগ আল্লাহর কাছে তুলে ধরা এবং মনের আশা পূরণের জন্য দোয়া করা উচিত।ট্রাক-সিএনজি সংঘর্ষে মা-মেয়ের মৃত্যু

নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলায় ট্রাক ও সিএনজি চালিত অটোরিকশার সংঘর্ষে ৩ বছর বযসী এক শিশুকন্যাসহ অজ্ঞাত (৩৫) এক নারী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় সিএনজি চালকসহ আহত হয়েছেন আরও তিনজন।

শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার চরজুবীলি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানঘাট-সোনাপুর সড়কের আবদুল মন্নান সুয়েটার কারখানার সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

তবে তাৎক্ষণিকভাবে নিহত মা-মেয়ের নাম পরিচয় জানা যায়নি। নিহতদের মরদেহ সুবর্ণচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সকালে হাতিয়া বাজার থেকে সোনাপুর বাজারের উদ্দেশ্যে যাত্রী নিয়ে একটি সিএনজি ছেড়ে আসে। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সিএনজিটি সুবর্ণচর উপজেলার চরজুবীলি ইউয়িনের ২নম্বর ওয়ার্ড আবদুল মন্নান সুয়েটার কারখানার সামনে পৌঁছালে সামনে থাকা চলন্ত একটি মালবাহী ট্রাকের পেছনে গিয়ে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিটি ধুমড়ে মুছড়ে গিয়ে গুরুতর আহত হন সিএনজি চালকসহ পাঁচজন।

পরে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে সুবর্ণচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক অজ্ঞাত মা-মেয়েকে মৃত ঘোষণা করেন। অপর আহত তিনজনের মধ্যে সিএনজি চালককে উন্নত চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

চরজব্বার থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জয়নাল আবেদিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। নিহত নারী ও শিশুর পরিচয় শনাক্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

একুশে সংবাদ/বিএইচ

Link copied!