ঢাকা সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০২১, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
Janata Bank
Rupalibank

লবণ আমদানি বন্ধ ও ন্যায্যমূল্যর লক্ষ্যে ৭ দফা দাবীতে স্মারকলিপি প্রদান


Ekushey Sangbad
একুশে সংবাদ ডেস্ক
০৯:১৩ পিএম, ২৫ নভেম্বর, ২০২১
লবণ আমদানি বন্ধ ও ন্যায্যমূল্যর লক্ষ্যে ৭ দফা দাবীতে স্মারকলিপি প্রদান

শাহাদত হোছাইন: কক্সবাজারের দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়ার লবণ চাষীরা বিদেশী লবণ আমদানি বন্ধ ও লবণের ন্যায্যমূল্য নির্ধারণসহ ৭ দফা দাবীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেন।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) দুপুরে কুতুবদিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূরের জামান চৌধুরীর হাতে এ স্মারকলিপি প্রদান করেন। 
 

জানা যায়, চলতি মৌসুমে (গত সেপ্টেম্বর মাসের শেষের দিকে) কুতুবদিয়ার চাষীরা লবনের ন্যায্যমূল্য পাওয়ার আশায় লবণ চাষ শুরু করেন। চলতি মৌসুমে দ্বীপের প্রায় ৫ হাজার একর লবণ চাষ শুরু হয়েছে। প্রতি কানি (৪০শতক) জায়গায় লবণ উৎপাদন করতে প্রায় ৮০ হাজার টাকা খরচ হয়। প্রতি মন লবন উৎপাদন করতে প্রায় ২৮০ টাকা খরচ হয়।

 বর্তমানে উৎপাদিত নতুন লবণের মূল্য পাচ্ছে ২২০ টাকা। যার কারণে লবণ চাষীদের লোকসান গুনতে হচ্ছে। এ রকম চলতে থাকলে লবণ চাষ করতে চাষীরা আগ্রহ হারিয়ে ফপলবে। অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশ থেকে লবণ শিল্প হারিয়ে যাবে বলে মনে করেন লবণ ব্যবসায়ীরা। 

লবণ চাষী আবু মুছা জানায়, গত মৌসুমে লবণের দাম কম থাকায় এ অঞ্চলের লবণ চাষীদের ব্যাপক লোকসান হয়। অনেক প্রান্তিক চাষীরা লবণ উৎপাদন বন্ধ করে দিয়েছে। চলতি মৌসুম শুরুতে লবণের দাম কিছুটা বৃদ্ধি পাওয়ায় গেল বছরের  লবণ চাষের লোকসান পোষাতে চাষ শুরু করেন লবন চাষীরা। 

লবণ ব্যবসায়ী মোহাম্মদ নাছির বলেন, গত মৌসুমে লবণের দাম কম থাকায় কুতুবদিয়ার লবণ চাষীদের ব্যাপক লোকসান হয়। এতে করে অনেক চাষীরা লবণ চাষ থেকে মূখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন। অনেকেই মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। 

এ ব্যাপারে কৈয়ারবিল ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের  আহবায়ক আজমগীর মাতবর বলেন, গত মৌসুমে লবণের দাম কম থাকায় লবণ চাষীদের লোকসান গুনতে হয়ছে। চলতি মৌসুমের শুরুতে সরকার লবণের দাম কিছুটা বৃদ্ধি পাওয়ায় চাষীরা তড়িঘড়ি করে গত সেপ্টেম্বর মাসের শেষের দিকে পুরোদমে লবণ উৎপাদন শুরু করেন। 

সম্প্রতি সরকার লবন আমদানির সিদ্ধান্ত নেওয়ায় এ অঞ্চলের চাষীরা হতাশ হয়ে পড়েন। তাই দেশীয় লবণ শিল্পকে এবং এ অঞ্চলের লবণ চাষীদের বাচাঁতে লবণ আমদানি বন্ধ ও লবণের ন্যায্য মূল্য নির্ধারণপূবর্ক লবণ বোর্ড গঠনের জন্য সরকারের সুদৃষ্টি আর্কষণ করছি। সাথে সাথে উপকূলীয় এলাকায় ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র লবণ রিফাইনারি খারখানা স্থাপন,সিন্ডিকেট ব্যবসা বন্ধের দাবী জানান।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূরের জামান চৌধুরী জানায়, লবণ চাষীদের জন্য সরকার খুবই আন্তরিক, লবণ চাষী ও লবণ ব্যবসায়ীদের দেওয়া স্মারকগুলো যথাযথ দিক নির্দেশনা অনুসরণ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে পাঠানো হবে।

স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন, লবণ ব্যবসায়ী প্রতিনিধি ও কৈয়ারবিল ইউপি চেয়ারম্যান আজমগীর মাতবর, লেমশীখালী ইউপি চেয়ারম্যান আকতার হোছাইনসহ লবণ ব্যবসায়ী ও লবণ চাষীরা। 

একুশে সংবাদ/ শা/ হা/