AB Bank
ঢাকা শনিবার, ২০ জুলাই, ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী
তারেক-জোবায়দার মামলা

বিএনপিপন্থী ১৫০ আইনজীবীর বিরুদ্ধে থানায় জিডি


Ekushey Sangbad
নিজস্ব প্রতিবেদক
০৩:১৮ পিএম, ৩১ মে, ২০২৩
বিএনপিপন্থী ১৫০ আইনজীবীর বিরুদ্ধে থানায় জিডি

জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী জোবায়দা রহমানের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণের সময় এজলাসে আইনজীবীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনায় বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাসুদ আহম্মেদ তালুকদারসহ ২৮ আইনজীবীর নাম উল্লেখ করে এবং বিএনপিপন্থি ১০০ থেকে ১৫০ অজ্ঞানতামা আইনজীবীর কথা উল্লেখ করে জিডি করা হয়েছে।

 

জিডির বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন কোতোয়ালি থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাহবুবুর রহমান।

 

বুধবার (৩১ মে) তিনি এ জিডি করা হয়। কোতোয়ালি থানার অফির্সাস ইনচার্জ শাহীনুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

 

তিনি বলেন, আদালতে হট্টগোলের ঘটনায় একটি জিডি করেছেন মহানগর দায়রা জজ আদালতের নাজির শাহ মো. মামুন। মঙ্গলবার (৩০ মে) দিনগত রাতে এ জিডি করেন তিনি। তদন্ত করে আমরা এ বিষয় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।

 

জিডিতে যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে তারা হলেন– বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাসুদ আহম্মেদ তালুকদার, অ্যাডভোকেট সেলিম, মিলন, মিনহাজ রানা, আনোয়ার হোসেন, মো. জাবেদ, শফিকুল ইসলাম শফিক, আব্দুল হান্নান, আব্দুল খালেক মিলন, জহিরুল ইসলাম কাইয়ুম, তাহমিনা আক্তার হাশমী, শামিমা আক্তার শাম্মি, নারগিস সুলতানা মুক্তি, ওমর ফারুক ফারুকী, মো. নিজাম উদ্দিন নিজাম, মো. ইব্রাহীম স্বপন, মো. মোয়াজ্জেম, মো. নুরুজ্জামান, এইচ এম মাসুম, মো. হিরা , মো. সামছুজ্জামান দিপু, মো. বিল্লাল হোসেন, মো. মাসুম হাসান, মো. নিহার হোসেন ফারুক, মো. তাহেরুল ইসলাম তৌহিদ, মো. হাফিজুর রহমান হাফিজ, জহিরুল ইসলাম মুকুল, নুরুজ্জামান তপন। এছাড়াও আরও ১০০/১৫০ জন অজ্ঞাতনামা আইনজীবীর কথা বলা হয়েছে জিডিতে।

 

জিডিতে বলা হয়, তারেক রহমান ও তার স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় সাক্ষ্য নেওয়ার সময় মঙ্গলবার (৩০ মে) বিকেল ৩টার দিকে ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ মো. আছাদুজ্জামানের আদালতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা ও হাতাহাতি হয়। তখন বিচারক সাক্ষ্যগ্রহণ মুলতবি রেখে এজলাস ছাড়তে বাধ্য হন। বিকেল সোয়া ৫টা পর্যন্ত দুই পক্ষের আইনজীবীদের মধ্যে হট্টগোল চলে। 

 

জানা যায়, মামলাটিতে গত ২৮ মে থেকে প্রতিদিন সাক্ষ্য গ্রহণ চলছিল। সোমবার বিএনপিপন্থী আইনীজীবী ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক সেক্রেটারি ওমর ফারুক ফারুকী মামলাটির সাক্ষ্য চলাকালে বিচারককে বলেন, এ মামলায় প্রতিদিন সাক্ষ্য গ্রহণের বিষয়টি দৃষ্টিকটু। আমরা চাই, এভাবে যেন প্রতিদিন সাক্ষ্য গ্রহণ না করা হয়। তখন বিচারক বলেছিলেন, তিনি বিষয়টি দেখবেন। 

 

মঙ্গলবার আবার মামলাটি সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য থাকায় এ আইনজীবী বিএনপি দলীয় কিছু আইনজীবীর উপস্থিতিতে বিষয়টি আবার আদালতে মেনশন করলে রাষ্ট্রপক্ষের একজন প্রসিকিউটর আইনজীবী ফারুকীর বক্তব্য ভিডিও করছিলেন। ওই সময় বিএনপি দলীয় আইনজীবীরা তাতে বাধা দেন। বিষয়টি নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। তা একপর্যায়ে হাতাহাতিতে রূপ নেয়। তখন বিচারক এজলাস ছেড়ে যান। খবর পেয়ে আওয়ামী লীগ দলীয় আইনজীবীরাও ওই আদালতে আসেন। উভয় পক্ষের আইনজীবীরা একে অপরের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকেন। বেলা ৫টা পর্যন্ত বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা আদালত কক্ষে অবস্থানের পর তারা চলে যান। সন্ধ্যা ৬টার দিকে বিচারক পুনরায় এজলাসে উঠে ২৫ মিনিট অবস্থান করে সাক্ষীর অবশিষ্ট জবানবন্দি নেন।

 

এ বিষয়ে দুই পক্ষ একে অপরকে অভিযুক্ত করে বক্তব্য দিয়েছেন। এ সম্পর্কে দুদক প্রসিকিউটর মোশাররফ হোসেন কাজল বলেছেন, মামলার আসামি তারেক রহমান ও জোবায়দা রহমান পলাতক। তাই, এ মামলায় আসামিপক্ষের কোনো বক্তব্য থাকতে পারে না। তারপরও তারা প্রতিদিন আদালতে উপস্থিত থেকে বাধা সৃষ্টি করেন। মঙ্গলবার তারা আদালতের সঙ্গে অনেক অশোভন আচরণ করেছেন।

 

বিএনপিপন্থী আইনজীবী ওমর ফারুক ফারুকী বলেন, আসামি পলাতক থাকলে আমরা কি আদালতে উপস্থিতও থাকতে পারব না? তারা আদালত কক্ষে বেআইনিভাবে ছবি তুলতে, ভিডিও করতে থাকেন? আমরা এর প্রতিবাদ করায় আমাদের ওপর চড়াও হয়ে মারধর করেছেন। তারাই আদালতের পরিবেশ নষ্ট করেছেন। 

 

এদিকে, আদালত মঙ্গলবার মামলাটিতে আরও একজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেছেন। তিনি হলেন আরব বাংলাদেশ ব্যাংকের চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট এম এ মতিন। এ নিয়ে মামলাটির ৫৬ সাক্ষীর মধ্যে সাতজনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ হলো। আগামীকাল বুধবার মামলাটি সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ধার্য আছে।

 

আইনজীবীদের এমন কর্মকাণ্ডের পর আদালত পাড়ায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। কয়েকশ পুলিশ মোতায়েন করা হয় ওই এলাকায়।

 

একুশে সংবাদ/জ.ন.প্র/জাহা

Link copied!