ঢাকা মঙ্গলবার, ০২ মার্চ, ২০২১, ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
Janata Bank
Rupalibank

"উদার আকাশ" ২০ বর্ষ মিলন সংখ্যা উদ্বোধন করলেন ডা. পি বি সেলিম 


Ekushey Sangbad
নিজস্ব প্রতিনিধি
০৩:৩২ পিএম, ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১

‘মিলন উৎসব ২০২১’-র মঞ্চে "উদার আকাশ" ২০ বর্ষ, মিলন উৎসব সংখ্যা আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করলেন পশ্চিমবঙ্গ সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও বিত্ত নিগমের চেয়ারম্যান ডা. পি বি সেলিম। 

পার্ক সার্কাস ময়দানে বৈচিত্র্যের মাঝে মহামিলন উৎসব শুভ সূচনা হলো ১ ফেব্রুয়ারি সোমবার। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-এর অনুপ্রেরণায় পশ্চিমবঙ্গ সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও বিত্ত নিগম এর উদ্যোগে ১ ফ্রেব্রুয়ারি থেকে ৫ ফ্রেব্রুয়ারি পর্যন্ত আয়োজিত হচ্ছে ‘মিলন উৎসব ২০২১’।

পশ্চিমবঙ্গ সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও বিত্ত নিগমের চেয়ারম্যান দক্ষ আধিকারিক ডাঃ পি বি সেলিম (আই.এ.এস.)-এর নেতৃত্বে এই মিলন উৎসবে বিগত বছরগুলোর মতোই এবছরও আবেগ-আনন্দ-উচ্ছ্বাসে শামিল হচ্ছেন হাজার হাজার মানুষ। সর্ব শ্রেণির মানুষের কল্যাণে এই উৎসবের সার্বিক পরিকল্পনা ও সার্থক আয়োজন দেখে মুগ্ধ সবাই। মিলন উৎসব বাংলার মননের আকাশে ইতিপূর্বেই বিশেষ দাগ কেটেছে। এবছরও তা ঘরে ঘরে ঐক্য আর সম্প্রীতির বার্তা পৌঁছনোর ডাক দিল।

সোমবার মিলন উৎসব ২০২১-এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করলেন রাজ্য সরকারের মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। এদিন মূল মঞ্চে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর পশ্চিমবঙ্গ সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও বিত্ত নিগমের চেয়ারম্যান ডাঃ পি বি সেলিম (আই.এ.এস.)-এর হাত দিয়ে শুভ উদ্বোধন হলো "উদার আকাশ’ ২০ বষ, ১ম বর্ষ বিশেষ মিলন উৎসব সংখ্যা ২০২১। "উদার আকাশ" পত্রিকা ও প্রকাশনের সম্পাদক ফারুক আহমেদ পত্রিকার বিশেষ সংখ্যাটি ডা. পি বি সেলিম-এর হাতে তুলে দেন। উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গ সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও বিত্ত নিগমের জেনারেল ম্যানেজার শামসুর রহমান।

এদিন "উদার আকাশ" প্রকাশন থেকে প্রকাশিত শবনম সালেহা রচিত " বিশ্বনবী মুহাম্মদ স.’ এবং সেখ আব্দুর রহমান রচিত "ইসলাম কী বলে’ গ্রন্থ দুটিরও আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করলেন ডা: সেলিম। মঞ্চে স্কলারশিপ, ঋণ, প্রভৃতি প্রদান করা হয়।

এবছর মিলন উৎসবের থিম "ঐকতান’। গতবছর ছিল "আমাদের সংবিধান আমাদের শক্তি’। 

বাংলার অন্যতম দক্ষ প্রশাসনিক আধিকারিক সেলিম সাহেবের আন্তরিক প্রচেষ্টায় গত বছরের মতো এবছরেও মিলন উৎসব-এর বিশেষ আকর্ষণে আছে কেরিয়ার স্টল, মেডিকেল প্যাভিলিয়নে স্বাস্থ্য পরীক্ষা শিবির, ফুড স্টল, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক প্রদর্শনী, সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা, জব মেলা, হস্তশিল্পের স্টল, কিডস জোন, শিক্ষা সচেতনতার জন্য বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টল, চাকরি জন্য কেরিয়ার কাউন্সেলিং, বাংলার বিভিন্ন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নিজস্ব হস্তশিল্প প্রভৃতি। এছাড়াও প্রতিদিন থাকছে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সব মিলিয়ে বিভিন্ন বিষয়ে ২০০ –র বেশি  স্টল।

উৎসবের উদ্বোধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের মন্ত্রী ও কলকাতা পৌরসভার মেয়র ফিরহাদ হাকিম। বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজ্যের আরও দুই মন্ত্রী জাভেদ আহমেদ খান ও গিয়াস উদ্দিন মোল্লা। উপস্থিত ছিলেন সাংসদ নাদিমুল হক ও প্রাক্তন সাংসদ আহমেদ হাসান ইমরান। আরও উপস্থিত ছিলেন সংখ্যালঘু বিষয়ক ও মাদ্রাসা শিক্ষা সচিব গোলাম আলী আনসারী (আইএএস), ওয়াকফ বোর্ডের চেয়ারম্যান ও বিধায়ক আবদুল গণি, বিধায়ক খালেক মোল্লা,  ক্বারী ফজলুর রহমান ও মওলানা শফিক ক্বাসমী। 

পশ্চিমবঙ্গ সংখ্যালঘু উন্নয়ন ও বিত্ত নিগমের জেনারেল ম্যানেজার শামসুর রহমান ও মোহাম্মদ নকি সহ বিত্ত নিগমের অন্যান্য আধিকারিক ও কর্মচারীবৃন্দও এই মহা আয়োজন সফল করতে সক্রিয় ভূমিকা নেন।

মেডিকেল প্যাভিলিয়নে পরিষেবা দান করছে উদার আকাশ, ন্যাশানাল মেডিকেল কলেজ, আই কেয়ার এন্ড রিসার্চ সেন্টার, কার্ডিওলজিস্ট নারায়ণ হেল্থ, ইউনিসেফ, ট্রাইবেকা কেয়ার প্রভৃতি সংস্থা।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, খ্রিস্টান, মুসলিম, বৌদ্ধ, জৈন প্রভৃতি সম্প্রদায়ের শিল্পী ও সাংস্কৃতিক কর্মীরা বিভিন্ন দিনে সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠান করবেন। 

 

একুশে সংবাদ/ ফা.ক / এস