AB Bank
ঢাকা শনিবার, ১৫ জুন, ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

তীব্র যানজটে নাকাল রাজধানীবাসী


Ekushey Sangbad
হাসান কাজল
০৮:১৮ পিএম, ১১ জুন, ২০২৪
তীব্র যানজটে নাকাল রাজধানীবাসী

  • যানজটের কারণে ঢাকা মহানগরীতে দৈনিক ৫০ লাখ কর্মঘণ্টা নষ্ট হচ্ছে
  • যানজটের কারণে আর্থিক ক্ষতি বছরে ৩৭ হাজার কোটি টাকা
  • রাজধানীতে যানজট সমস্যা অক্টোপাসের মতো নগরবাসীর ওপর চেপে বসেছে

গত দুইদিন থেকেই যানজটে নাকাল রাজধানীবাসী। বিশেষ করে অসুবিধায় পড়েছেন অফিসগামী ও জরুরী প্রয়োজনে বের হওয়া মানুষ। ঘণ্টার পর ঘণ্টা রাস্তায় বসে থাকতে হচ্ছে তাদের। গুলিস্তান, মগবাজার, সায়েদাবাদ, মতিঝিল, চানখারপুল থেকে সায়েদাবাদ পযর্ন্ত হানিফ ফ্লাইওভারের পুরোটাই যানজটে আটকে আছ। মহাখালি ফ্লাইওভারে উপর-নিচে পুরো প্যাকেট হয়ে আছে। বিজয় সরণি, তেজগাঁও, বনানী থেকে উত্তরার দিকের বেশিরভাগ সড়কে তীব্র যানজট দেখা দিয়েছে।

রাজধানী ঢাকায় প্রতিনিয়ত যানবাহন বৃদ্ধির কারণে যাতায়াতে ভোগান্তি বাড়ছে নগরবাসীর। স্বল্প দূরত্বের এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে সীমাহীন দুর্ভোগ ও সময়ের অপচয় হচ্ছে। গবেষণা প্রতিবেদন বলছে, যানজটের কারণে ঢাকা মহানগরীতে দৈনিক ৫০ লাখ কর্মঘণ্টা নষ্ট হচ্ছে কর্মজীবীদের, যার আর্থিক ক্ষতি বছরে ৩৭ হাজার কোটি টাকা।

গতকাল রাজধানীর খামারবাড়ির বাংলাদেশ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে ‘দ্য ফিউচার প্ল্যানিং আরবান ট্রান্সপোর্টেশন ইন ঢাকা’ শীর্ষক এক সেমিনারে এসব কথা বলেন বক্তারা। বিশেষজ্ঞদের মতে, শহরে যানবাহনের গতি মানুষের হাঁটার গতির মতো ঘণ্টায় প্রায় পাঁচ কিলোমিটারে চলে এসেছে। ১২ বছর আগেও ঢাকায় যানবাহনের এ গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ২১ কিলোমিটার।

সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান বলেন, 

নগরবাসীর কথা চিন্তা করে এবং সমস্যা সমাধানে দায়িত্ব বিকেন্দ্রীকরণ করা যেতে পারে। সিলেটের কাজের জন্য সেখানকার এলাকায় দায়িত্ব বণ্টন, রংপুরের সমস্যা সমাধানে ওই অঞ্চলে দায়িত্ব বণ্টন করা যেতে পারে। এ ধরনের সাহসিকতা যদি আমরা দেখাতে পারি, তাহলে একটা সম্ভাবনা তৈরি হতে পারে।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, এর আগে আমরা বিকেন্দ্রীকরণের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়েছি। আমাদের রেল, স্টিমারের বিকেন্দ্রীয় অফিস করা হয়েছিল বরিশাল ও চট্টগ্রামে। কিন্তু তারা কোনো কাজ করেনি। ওই কর্তাব্যক্তিরা সবসময় ঢাকায় বসে থাকতেন। তবে শুধুই অফিস বিকেন্দ্রীকরণ করলে হবে না, অফিসের যে ক্ষমতা সেটিও হস্তান্তর করতে হবে। এমএ মান্নান বলেন, প্ল্যানিং বাস্তবায়নে আমরা অনেক দুর্বল। আমাদের অনেক ঘাটতি আছে। ডিজিটালাইজেশনে আমাদের পরিকল্পনাগুলো রূপান্তর করতে হবে।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, 

ঢাকা শহরে মেট্রোরেল প্রকল্প চলমান। নগরবাসীর জীবন এখন অসহনীয় পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং, ট্রাফিক আইন না মানা, হরহামেশা রাস্তা পারাপার, বেপরোয়া গাড়ি চালানো, উন্নয়নের নামে রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি এবং মানুষ রাজধানীমুখী হওয়ায় এ সংকট তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে।

নুরুল ইসলামের কর্মস্থল সেগুনবাগিচায়। জুরাইনের বাসা থেকে হানিফ ফ্লাইওভার হয়ে অফিসে আসতে তার সময় লেগেছে ৯০ থেকে ১০০ মিনিট । এবিষয়ে তিনি বলেন , শুধু ফ্লাইওভারেই আটকে ছিলাম ৪০ মিনিটের বেশি সময়। সে আরও বলেন, শুধু ফ্লাইওভার নয় জুরাইন, পোস্তগোলা, লালবাগ, কামরাঙ্গিচর, জিন্জিরাসহ পুরো ঢাকা শহর এখন যানজটে থমকে আছ।

এসব যানজটের কারণ অনুসন্ধানে জানা গেছে, 

বকেয়া বেতনের দাবিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন পোশাক শ্রমিকরা। এতে মহাসড়কে ৪ কিলোমিটার এলাকায় যানজট সৃষ্টি হয়। মঙ্গলবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জের লাঙ্গলবন্দ এলাকার চট্টগ্রামমুখী লেনে টোটাল ফ্যাশন লিমিটেডের পোশাক শ্রমিকরা এই আন্দোলন করেন। পরে দুপুর ১টায় পুলিশ তাদের বুঝিয়ে মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দেন।

এর আগে, শ্রমিকদের আন্দোলনের কারণে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বন্দরের মালিবাগ এলাকা থেকে সোনারগাঁয়ের চৈত্রী গার্মেন্ট এলাকা পর্যন্ত প্রায় ৪ কিলোমিটার এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়। যানবাহন চলাচলে ধীরগতির কারণে ভোগান্তিতে পড়েন এই সড়ক দিয়ে চলাচল করা যাত্রীরা।

সোমবারের যানজট নিয়ে ট্রাফিকের মন্তব্য ছিল সড়ক ও ফ্লাইওভারে পৃথক কয়েকটি দুর্ঘটনা ঘটেছে। যে কারণে, যানজট ছড়িয়ে যায় নগর জুড়ে। বিশেষ করে বায়তুল মোকারামের সামনে ট্রাক উল্টে যায়। সেখানে সকালে বাঁশজাতীয় পণ্য বহন করা ট্রাক সড়কের মাঝে উল্টে যায়। পণ্যগুলো সড়কের এদিক ওদিক ছিটিয়ে পড়ে। ফলে এই এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। দুর্ঘটনাস্থলের পাশ দিয়ে কিছু যানবাহন চলাচল করতে পারলেও পল্টন থেকে বিজয়নগরের দিকে গাড়ি থমকে আছে।

বর্তমানে রাজধানীতে যানজট সমস্যা অক্টোপাসের মতো নগরবাসীর ওপর চেপে বসেছে। রাজধানীর প্রতিটি সড়ক, অলিগলি, গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোয় এ সমস্যা বিদ্যমান। এ সমস্যা নগরবাসীকে দিনের পর দিন অতিষ্ঠ করে তুলছে। বিশেষ করে অফিসগামী মানুষ, শিক্ষার্থী এবং নিম্নআয়ের মানুষ বেশি বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। ভুক্তভোগীদের ভাষ্য থেকে জানা গেছে,১৫ থেকে৩০ মিনিটের পথ পার হতে যানজটের কারণে সময় লাগছে ২ থেকে ৩ ঘণ্টা। অফিসগামী মানুষেরা বলেন, সকাল ৯টা থেকে অফিস সেই অফিসে পৌঁছাতে ২ থেকে আড়াই ঘণ্টা সময় লাগে। কর্মজীবী মানুষেরা বলেন, দিনের অর্ধেক সময় চলে যায় রাস্তায় । অসহনীয় যানজটের কারণে সার্বিক উন্নয়ন এবং অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রা দিনের পর দিন ব্যাহত হতে চলেছে।

যানজটের কারণ নিয়ে অভিজ্ঞ মহল বলেন, 

অবৈধভাবে ফুটপাত দখল, বর্ষা মওসুমে অতিরিক্ত রাস্তা খোঁড়াখুঁড়িতে প্রবল বৃষ্টিপাতে সড়কগুলোর বেহালদশা, গাড়ি-ট্রাক-প্রাইভেট গাড়িগুলোর যত্রতত্র পার্কিং, জায়গায় জায়গায় বাস থামিয়ে যাত্রীদের ওঠানামা, গাড়ি চালানোর সময় চালকদের বিরামহীন প্রতিযোগিতা, গাড়িচালকদের অদক্ষতা, ট্রাফিক আইন ঠিকমতো না মানা এবং গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোয় রেলক্রসিং,বারবার ট্রেন আসা-যাওয়া করা ইত্যাদি হচ্ছে যানজট বৃদ্ধির কারণ। সবচেয়ে বড় কারণ হচ্ছে দেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে যানবাহনের সংখ্যাও প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু সে তুলনায় রাস্তার।

 

একুশে সংবাদ/স.ট.প্র/জাহা
 

Link copied!