ঢাকা শনিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২১, ২৭ চৈত্র ১৪২৭

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
Janata Bank
Rupalibank

সূর্যমুখির হাসি দেখতে উপচে পড়া ভিড় 


Ekushey Sangbad
জেলা প্রতিনিধি, মেহেরপুর
০৫:৪১ পিএম, ১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১
সূর্যমুখির হাসি দেখতে উপচে পড়া ভিড় 

চাহিদা মেটানোর জন্য সূর্যমুখির চাষ করেছে মেহেরপুরের আমঝুপি বীজ উৎপাদন খামার। সেখানে বীজ উৎপাদনে ২১ বিঘা জমিতে চাষ হয়েছে সূর্যমূখি। 

সূর্যমুখি ফুলে-ফুলে ভরে গেছে খামারের জমি। মেহেরপুর-চুয়াডাঙ্গা সড়কের পাশে আমঝুপি বীজ উৎপাদন খামারে সূর্যমুখি ফুলের হাসি সব বয়সী মানুষের দৃষ্টি কেড়েছে। আর সেই দৃষ্টিকাড়া ফুলের মধ্যে কেউ সেলফি, কেউ স্বজন নিয়ে সকাল থেকে সন্ধ্যে পর্যন্ত ছবি তুলতে ভিড় করছে। কেউ যেন ফুল না ছেড়ে সেজন্য সেখানে লোকবল নিয়োগ করতে হয়েছে।খামারে চাষ করা সূর্যমূখি ফুলের ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হলে গত দিন পনের থেকে সেখানে উপচে পড়ছে মানুষের ভিড়। 

২০ থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরের মানুষ মাইক্রোবাস-কার, মোটর সাইকেলে করে ছুটে আসছে মানুষ। যুবক-যুবতীদের সামলাতে কাহিল হতে হচ্ছে খামারের লোকজনকে। অনেকেই গাছ ভেঙ্গে জমির মাঝে চলে যাচ্ছে ছবি তুলতে। তাতে গাছের ক্ষতি হলো কি না দেখছে না।

গাংনী উপজেলার মালসাদহ গ্রাম থেকে স্বামী সন্তান নিয়ে ছবি তুলতে আসা গৃহবধু শারমিন আক্তার জুঁই জানান- ফেসবুকে ফুলের দৃশ্য দেখে মুগ্ধ হয়ে ছবি তুলতে এসেছি। এখানে এসে সংসারের ভারে ক্লান্ত মনটা ভরিয়ে গেলো। ফুলে-ফুলে ভরপুর এমন দৃশ্য আর আমঝুপি বীজ উৎপাদন খামারে স্বপরিবারে বিনোদনের একটি জায়গাও বটে। 

ছবি তুলতে আসা সাগরিকা সরকার জানান- জন্মের এ পর্যন্ত এমন মাঠজুড়ে সুর্যমুখি ফুল দেখিনি। স্মৃতিতে ধরে রাখতে এখানে ছবি তুলতে এসেছি স্ববান্ধবে।

আমঝুপি বীজ উৎপাদন খামারের কেয়ার টেকার আমিরুল ইসলাম জানান, ফুল ফোটার পর ফেসবুকে ভাইরাল হলে মানুষের ভিড় বাড়তে থাকে। কাউকে আটকানো যাচ্ছেনা। খামারের মুল গেটে তালা লাগানোর পর প্রাচির টপকে মানুষ ভেতরে প্রবেশ করছে। বাধ্য হয়ে গেট খুলে দিয়ে লাঠি হাতে জমির মধ্যে আসা প্রতিরোধ করাতে হচ্ছে।খামারের উপ-পরিচালক মামুনুর রসিদ জানান, বীজের জন্য খামারে প্রতিবছরই কমবেশী সুর্যমূখির চাষ করা হয়। এবার ২১ বিঘা জমিতে চাষ করা হয়েছে। পুরোমাঠ জুড়ে ফুলে ভরে যাওয়াতে দৃষ্টিনন্দন পরিবেশ তৈরী হয়েছে। এখন সব শ্রেণির মানুষ ফটো তোলার জন্য ভিড় করছে। মানুষের উপস্থিতি ভালো লাগছে। কিন্তু কিছু নারী পুরুষ গাছ দুমড়ে-মুচড়ে ভেতরে গিয়ে ছবি তুলছে। যা ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। লোকবল দিয়েও জমির মাঝে যাওয়া ঠেকানো যাচ্ছেনা।


একুশে সংবাদ/ হা.জ /এস