AB Bank
ঢাকা বুধবার, ১৭ জুলাই, ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

বার্বাডোজে রশিদ খানরা পাচ্ছে না হালাল খাবার!


Ekushey Sangbad
স্পোর্টস ডেস্ক
০৫:১২ পিএম, ২২ জুন, ২০২৪
বার্বাডোজে রশিদ খানরা পাচ্ছে না হালাল খাবার!

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২৪ চলাকালীন খাবারের সমস্যায় পড়তে হয়েছে আফগানিস্তান দলকে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সুপার এইট পর্বে খেলতে গিয়ে খাবারের সমস্যায় পড়েছেন আফগানিস্তানের ক্রিকেটাররা। আসলে ক্যারিবিয়ান দ্বীপ বার্বাডোজে গিয়ে হালাল খাবার পাচ্ছেন না তারা। এমনকি আইসিসির নির্ধারিত খাবারের জায়গাতেও হালাল খাদ্য প্রায় নেই বললেই চলে। প্রায় সময়ে নিজেদের খাবার নিজেদের রান্না করে খেতে হচ্ছে আফগানিস্তান ক্রিকেট দলকে। ফলে বাধ্য হয়েই রান্নার দায়িত্ব নিজেদের হাতেই তুলে নিয়েছে রশিদ খানের দল। 

বার্বাডোজে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে নামার আগে খাবার নিয়ে নানা সমস্যার কথা জানিয়েছিলেন আফগানিস্তানের অধিনায়ক রশিদ খান। ২০২২ সালের গণনা অনুয়ায়ী বার্বাডোজে প্রায় ৩ লক্ষ মানুষ বসবাস করেন। যেখানে ৭৫ ভাগই খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী। অর্থাৎ মুসলিম জনগোষ্ঠী রয়েছে সবমিলিয়ে তিন হাজারের মতো। ফলে হালাল খাবার সেখানে সহজলভ্য নয়। এদিকে আফগানিস্তান মুসলিম প্রধান দেশ, সুতরাং যেখানেই যান আফগান ক্রিকেটাররা হালাল খাবার খেয়ে থাকেন। কিন্তু বার্বাডোজে হালাল খাবার খুঁজে পাচ্ছেন না তাঁরা। আর এ কারণে বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে আফগানিস্তান ক্রিকেট দলকে।

এর আগে সেন্ট লুসিয়াতে ছিল আফগানিস্তান দল। সেখানে এই সমস্যাটি এতটা প্রকট ছিল না। কিন্তু বার্বাডোজে সমস্যাটি বেশি বলেই মনে করা হচ্ছে। রশিদ বাহিনী নাকি আইসিসির ডাইনিংয়েও ঠিক মতো হালাল খাবার পাচ্ছেন না। দলের একজন ক্রিকেটার বলেন, ‘সেন্ট লুসিয়াতে আমাদের তেমন সমস্যা হয়নি। কিন্তু এখানে এটি সহজলভ্য নয়। শেষ পর্যন্ত আমাদের এক বন্ধু আমাদের জন্য হালাল মাংসের ব্যবস্থা করেছে এবং আমরা নিজেরাই সেটি রান্না করেছিলাম।’

এক টিভি টকশোতে আফগান অধিনায়ক রশিদ খান বলেন, ‘আইসিসির নির্ধারিত খাবারের জায়গাতেও হালাল খাদ্য নেই বললেই চলে। তাই প্রায় সময়েই খাবার নিজেদেরই রান্না করে খেতে হচ্ছে।’ তিনি আরও মন্তব্য করে বলেন, ‘বিষয়টি আমাদের প্রস্তুতিতেও ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে। কারণ প্রস্তুতি বা বিশ্রামের বদলে আমাদের দলের সদস্যরা স্থানীয়দের কাছ থেকে হালাল খাবারের ব্যবস্থা করতে ব্যস্ত। এটি সত্যিই খুব চাপের।’

এই সময় তারা ভারতে আয়োজিত একদিনের বিশ্বকাপের সময়ের ব্যবস্থাপনার প্রশংসা করে বলেন, ‘ভারতে এ বিষয়টি নিখুঁত ছিল। কিন্তু এখানে এটি একটি বড় সমস্যা। আমরা যে হোটেলে থাকছি সেখানে হালাল মাংস পাওয়া যায় না। কখনও কখনও আমরা নিজেরাই সংগ্রহ করে রান্না করি, আবার কখনও কখনও বাইরে গিয়ে খাই।’

সুপার এইটে নিজেদের প্রথম ম্য়াচে ভারতের কাছে ৪৭ রানে হেরে ছিল রশিদ খানের আফগানিস্তান। রবিবার, ২৩ জুন সেন্ট ভিনসেন্টে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে আফগানিস্তান। এই ম্যাচে যদি আফগানিস্তান না জেতে তাহলে চলতি টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে তাদের ছিটকে যাওয়া প্রায় নিশ্চিত হয়ে যাবে।

একুশে সংবাদ/ এস কে

 

Link copied!