ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ২৭ মাঘ ১৪২৯

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. পডকাস্ট

বাংলাদেশের বিপক্ষে কোহলির ফেক ফিল্ডিং নিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যমেও উত্তাপ


Ekushey Sangbad
ক্রীড়া প্রতিবেদক
০৭:১৯ পিএম, ৩ নভেম্বর, ২০২২
বাংলাদেশের বিপক্ষে কোহলির ফেক ফিল্ডিং নিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যমেও উত্তাপ

ভারত-বাংলাদেশের ম্যাচের উত্তাপ ভারতীয় গণমাধ্যমেও। দেশটির শীর্ষ গণমাধ্যমগুলোতে গুরুত্ব দিয়ে প্রচার করা হয়েছে বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচে কোহলির ফেক ফিল্ডিংয়ের বিষয়টি।


হিন্দুস্তান টাইমস, এনডিটিভি থেকে শুরু করে দেশটির শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যমে ফলাও করে তুলে ধরা হয়েছে ফেক ফিল্ডিংয়ের বিষয়টি। দেশটির সোশ্যাল মিডিয়ায়ও চলছে আলোচনা-সমালোচনা।

 

বাংলাদেশের ইনিংসের সপ্তম ওভারে অক্ষর প্যাটেলের দ্বিতীয় বলটি থার্ডম্যান অঞ্চলে পাঠিয়ে দুই রানের জন্য দৌড়ান লিটন কুমার দাস ও নাজমুল হোসেন শান্ত। থার্ডম্যান অঞ্চল থেকে ওই বলটি উইকেটকিপারের দিকে থ্রু করেন আর্শদীপ সিং। ওই বল না ধরেই ছায়া ফিল্ডিং করেন বিরাট কোহলি, যা ক্রিকেটের নিয়মবিরুদ্ধ।


এ বিষয়টি নাকি তৎক্ষণাৎ আম্পায়ারদের অবহিতও করেন ক্রিজে থাকা শান্ত। কিন্তু আম্পায়াররা জানান, সেটি তাদের নজরে পড়েনি। তৃতীয় আম্পায়ারও আপত্তি করেননি। তবে নজরে এলে এবং সত্যিকার অর্থে ফেক ফিল্ডিং হয়ে থাকলে পাঁচ রান পেত বাংলাদেশ। যেখানে পরে বৃষ্টি আইনে লক্ষ্য তাড়া করতে নেমেও একই ব্যবধানে হেরেছে টাইগাররা।


আইসিসির ৪১ দশমিক ৫ ধারা অনুযায়ী ব্যাটারকে কোনোভাবে বাধা দিলে বা বিক্ষিপ্ত করার চেষ্টা করলে আম্পায়াররা বিপক্ষ দলকে পাঁচ রান শাস্তি হিসেবে দিতে পারেন। এ ক্ষেত্রে নীরব ভূমিকা পালন করেছেন দুই আম্পায়ার।

 

ম্যাচ শেষে এ নিয়ে অভিযোগ জানান নুরুল হাসান সোহান। তবে, কর্ণপাত করেননি আম্পায়াররা। বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যমেও। বেশ গুরুত্ব দিয়ে এ খবর প্রচার করেছে তারা। ভারতীয় দৈনিক আনন্দবাজারের শিরোনাম ছিল: বিরাট প্রতারণা, কোহলির বিরুদ্ধে ভুয়া ফিল্ডিংয়ের অভিযোগ।


এছাড়া হিন্দুস্তান টাইমস, এনডিটিভি, জি নিউজ, ক্রিকট্র্যাকারসহ দেশটির প্রায় সব গণমাধ্যমেই ঠাঁই করে নিয়েছে এ খবর। যদিও এমন পরিস্থিতিতেও বাংলাদেশের সমর্থকদের অজুহাত না খুঁজে বড় হওয়ার পরামর্শ ক্রিকেট বিশ্লেষক ও ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলের।


তিনি বলেন, ‘আমার বাংলাদেশের বন্ধুদের বলছি ফেক ফিল্ডিং, ভেজা মাঠ এসব নিয়ে অভিযোগ করা বন্ধ করুন। যদি একজন ব্যাটসম্যানও শেষমুহূর্ত পর্যন্ত লড়াই করতে পারত; তবে, বাংলাদেশ ম্যাচ জিততে পারত। কিন্তু তারা কি সেটা পেরেছে?’

 

ভোগলে যাই বলুন না কেন, এ আগুনে নতুন করে ঘি ঢেলেছেন ভারতীয় এক সাংবাদিক। তিনি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিখেছেন: ‘কষ্ট করে জেতার বদলে আইসিসির কাছ থেকে শিরোপাটা ভারতীয় দলকে নিয়ে দিলেই পারে বিসিসিআই।’

 

একুশে সংবাদ/সম/এসএস