ঢাকা শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১ আশ্বিন ১৪২৮

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
Janata Bank
Rupalibank

নাসুমের বিধ্বংসী বোলিং তোপে ৯৩ রানে অলআউট নিউজিল্যান্ড


Ekushey Sangbad
নিজস্ব প্রতিবেদক
০৬:৫০ পিএম, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১
নাসুমের  বিধ্বংসী বোলিং তোপে ৯৩ রানে অলআউট নিউজিল্যান্ড

মিরপুরের শেরে-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিকেল ৪টায় শুরু হওয়া ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ে নামে ব্ল্যাকক্যাপসরা। তাদের শুরুটা একেবারেই ভালো হতে দেননি বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। কৌশল বদলে শেখ মেহেদীর পরিবর্তে নাসুমকে দিয়ে ইনিংস শুরু করেন তিনি। ইনিংসের শুরুর বল থেকেই গ্রিপ পেয়েছেন তিনি। এতে বাড়তি বাউন্সের সঙ্গে টার্নও ছিল ভয়ঙ্কর। তার ফায়দা ঠিকই তুলে নিয়েছেন নাসুম।

নাসুমের ক্যারিয়ার সেরা ১০ রানে ৪ উইকেটের বিধ্বংসী বোলিং তোপে একেবারেই সুবিধা করতে পারেনি সফরকারীরা। এতে অলআউট হওয়ার আগে তাদের ইনিংস থেমেছে মাত্র ৯৩ রানে। ৫ ম্যাচের সিরিজের আগের ৩ ম্যাচে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে থাকা বাংলাদেশ দলের এই ম্যাচ জিতে সিরিজ জিততে প্রয়োজন ৯৪ রান। নাসুমের সঙ্গে এই ম্যাচে পেসার মুস্তাফিজুর রহমানও নেন সমান ৪ উইকেট।

 

প্রথম ওভারেই রাচিন রবীন্দ্রকে ফিরেয়ে শুরু। মেডেন ওভারে কিউই ওপেনারকে তুলে নেন তিনি। এতে রানের খাতা খোলার আগে সাজঘরে রাচিন। এক ওভার না যেতেই আবার আঘাত হানেন এই বাঁহাতি স্পিনার। এবার ফেরালেন ফিন অ্যালেনকে। নাসুমের লেন্থ বলে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে পয়েন্টে ধরা পড়েন সাইফউদ্দিনের হাতে। ৮ বলে ১২ রান করেন অ্যালেন।

পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে মাত্র ২২ রান তুলতে পারা সফরকারীরা পরে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি। ইনিংসের ১১তম ওভারে প্রথমবার বল হাতে নিয়ে সফল হন মেহেদীও। উইকেটে থিতু হয়ে যাওয়া টম লাথামকে বোকা বানান দারুণ বলে। স্টাম্পিং হয়ে ২১ রান করে সাজঘরে ফেরেন কিউই অধিনায়ক। উইল ইয়াং একপ্রান্ত আগলে রাখলে অপর প্রান্ত থেকে তার সতীর্থরা আসা-যাওয়ার মিছিলে যোগ দেন।

দ্বিতীয় স্পেলে ফিরে আবার বিধ্বংসী হয়ে ওঠেন নাসুম। তৃতীয় ওভারে বল হাতে দেন ৪ রান। নিজের স্পেলের শেষ ওভার হাত ঘুরাতে এসে জোড়া আঘাত হানেন তিনি। পরপর দুই বলে ফেরান হেনরি নিকোলস (১) ও কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে (০)। হ্যাটট্রিকের সুযোগ ছিল এই স্পিনারের সামনে তবে নতুন ব্যাটসম্যান টম ব্লান্ডেলের লাফিয়ে ওঠা বলটি ব্যাট না বাড়িয়েই ছেড়ে দেন। এতে চার ওভারে দুই মেডেনসহ মাত্র ১০ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন নাসুম।

এরপর দৃশ্যপটে আসেন মুস্তাফিজুর রহমান। ইনিংসের ১৬তম ওভারে বল করতে এসে দ্বিতীয় বলেই ব্লান্ডেলকে সাজঘরে ফেরান তিনি। মিডঅনে থাকা নাঈম শেখের দারুণ ক্যাচে ১০ বলে মাত্র ৪ রান করে আউট হন এই ব্যাটসম্যান। একই ওভারের শেষ বলে কোল ম্যাকক্যাঞ্চি নিজের বলে নিজেই দুর্দান্ত এক ক্যাচে সাজঘরের পথ ধরান মুস্তাফিজ। 

পরে ৪ রানে থাকা এজাজ প্যাটেলকে আউট করেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। তখনও একপ্রান্ত থেকে লড়াই চালিয়ে যান ইয়াং। ইনিংসের শেষ ওভারে তাকে নিজের তৃতীয় শিকারে পরিণত করেন মুস্তাফিজ। ৪৮ বলে ৪৬ রানের লড়াকু ইনিংস আসে ইয়াংয়ের ব্যাট থেকে। পরের বলেই মুস্তাফিজের শিকার হন ব্লেয়ার টিকনার। এতে অলআউট হওয়ার আগে নিউল্যান্ডের ইনিংস থেমেছে মাত্র ৯৩ রানে। ৩ ওভার ৩ বল হাত ঘুরিয়ে ১২ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন মুস্তাফিজ।