AB Bank
ঢাকা বুধবার, ১৭ জুলাই, ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

সামাজিক বিষফোড়াঁ কিশোর গ্যাং মোরেলগঞ্জে নতুন আতঙ্কের নাম


Ekushey Sangbad
ফাহাদ হোসেন, মোরেলগঞ্জ, বাগেরহাট
০৫:৫৩ পিএম, ১০ অক্টোবর, ২০২২
সামাজিক বিষফোড়াঁ কিশোর গ্যাং মোরেলগঞ্জে নতুন আতঙ্কের নাম

সামাজিক বিষফোড়াঁ কিশোর গ্যাং বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে একটি নাব্য আতঙ্কের নাম সন্ধ্যার পরে বাড়ছে কিশোর গ্যাংয়ের আড্ডা, আর এ জন্য দুশ্চিন্তায় অভিভাবকরা।

 

মোরেলগঞ্জে কিশোর গ্যাংয়ের আড্ডা প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে। বিশেষ করে বিকাল ৪টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত রাস্তার পাশে, বিভিন্ন মোড়ে, চায়ের দোকানে কিশোররা দলে দলে বসে আড্ডায় সময় কাটাচ্ছে। সন্ধ্যার পরে যে সময়টাতে তাদের থাকার কথা পাঠ্যবইয়ের সাথে,পড়ার টেবিলে,আর সেই সময়টাতে তাদেরকে রাস্তায় পাশে, চায়ের দোকানে,খোলা মাঠে,নদীর তীরে আড্ডায় মেতে থাকছে।

 

সাধারণ শিক্ষার্থীরা  পড়ার টেবিল ছেড়ে আধুনিক স্মার্টফোনে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেমের দিকে ঝুকে পড়ছে,প্রাথমিক থেকে শুরু করে মাধ্যমিক,উচ্চমাধ্যমিক পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা দিনদিন এ খেলায় আসক্ত হচ্ছেন। প্রশ্ন থেকে যায় এসব  শিক্ষার্থীদের তবে দেখার দায়িত্ব কার,নিশ্চই তাদের অভিভাবক এবং স্হানীয় প্রশাসনের।

 

উপজেলার  বারইখালী ফেরিঘাট নদীর পাড়, পুরাতন থানা খেয়াঘাট,লঞ্চ ঘাট পল্টন, পৌরপার্কের পেছনে নদীর পাড়,এ সি লাহা স্কুল সংলগ্ন মোড়েল স্মৃতি স্তম্ভের পাশে, নদীর ওপার সানকিভাঙা খাদ্যগুদাম সংলগ্ন মাঠ, নব্বইরশী বাসস্ট্যান্ড বালির রাস্তা সহ বিভিন্ন স্থানে দুপুর গড়িয়ে বিকেল হলেই কিশোরদের আড্ডায় সময় কাটাতে দেখা যায়।

 

এসব স্হানে আড্ডা দেয়া কিশোরদের প্রায় সবার হাতেই থাকে দামী মোবাইল ফোন।আড্ডায় বসে তারা মোবাইল গেমস সহ নানা অপকর্মের পরিকল্পনা করে।মোরেলগঞ্জ শহরের বেশ কয়েকটি দোকানের সামনে, খেলার মাঠসহ বিভিন্ন স্থানে ঘুরে দেখা গেছে যে, খুব দ্রুত ইন্টারনেট ফাইটিং গেম ফ্রি ফায়ার এবং পাবজি গেমসে মারাত্মকভাবে ঝুঁকছে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মেধাবী শিক্ষার্থীরা।

 

এর ফলে কিশোরদের একদিকে যেমন অপরাধ প্রবণতায় জড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে অন্যদিকে তাদের দৈনন্দিন শিক্ষা কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। মোরেলগঞ্জের বিভিন্ন স্হানে দেখা যায়  উঠতি বয়সী শিক্ষার্থীদের মোবাইল নিয়ে ফ্রি ফায়ার, পাবজি গেম খেলার আসর। গেম খেলার সময় অবিরত তাঁদের মুখ থেকে শুোনা যাচ্ছে বোম মার! গুলি কর! লুকা, পালা, রিভাইব দে, এছাড়াও নানা ধরণের নতুন নতুন আজব শব্দ।  বিকেল হলেই বেশিরভাগ সময় রাস্তার মোড়ে, খোলা মাঠে, নদীর পাড়ে টুল, পাটি পেতে আসর জমিয়ে উঠতি বয়সী শিক্ষার্থীদের আড্ডা ও অনলাইন গেম খেলার এ দৃশ্য যেন এখন মোরেলগঞ্জের নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা।

 

সারা দিন মোবাইল নিয়ে ব্যস্ত মোরেলগঞ্জের একটি সনামধন্য মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অস্টম শ্রেণির ছাত্র রিফাত (ছদ্মনাম)। রিফাত মা-বাবার সঙ্গে কোথাও যেতে চায় না। এলাকার সমবয়সী ছেলেদের সঙ্গে বেশিরভাগ সময় আড্ডায় মেতে থাকে। গল্পের বই পড়ে না। ক্রিকেট বা অন্য কোনো খেলাও খেলে না। মোবাইলে ফ্রি ফায়ার গেম ছাড়া আর কোনো কিছুতে আগ্রহ নেই তার। বাসার ওয়াই-ফাই কয়েক মুহূর্তের জন্য বন্ধ থাকলে তার উৎকণ্ঠা বেড়ে যায়। অস্থিরতা শুরু করে। মা-বাবা রাগ করে তার মুঠোফোনটি কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করতেই শান্ত সুবোধ রিফাত অগ্নিমূর্তি হয়ে বাসার দরজা আটকে দেয়, মা-বাবাকে কটূবাক্য বলে, চিৎকার করে আবার তার মুঠোফোনটি নিজের কাছে নিয়ে আসে।

 

মায়ের কাছে আবদার করায় ১৭তম জন্মদিনে ছেলেকে শখ করে মোবাইল ফোন কিনে দিয়েছিলেন রিফাতের বাবা। মোবাইল পেয়ে আনন্দে ফেটে পড়ে মা-বাবাকে জড়িয়ে ধরা রিফাতের সম্পর্ক এখন আর ভালো যাচ্ছে না তাঁদের সঙ্গে। সারা দিনই মোবাইলে গেম খেলে রিফাত। বিকেল হলে কিশোর বন্ধুদের সাথে বেড়িয়ে পড়ে, নিষেধ করলেও শোনে না, মোবাইল কেড়ে নিলে তা ফেরত না দেওয়া পর্যন্ত না খেয়ে বসে থাকে সে। রাতে বাড়িতে পড়াতে আসা প্রাইভেট শিক্ষকের কাছে একঘণ্টা লেখাপড়া করলেও এর বেশি সময় আর পড়তে বসে না।

 

এ অবস্থায় সন্তানের ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন রিফাতের পিতা-মাতা,বলছিলাম মোরেলগঞ্জ  পৌর শহরে  বাসিন্দা মোবাইল গেম ও কিশোর গ্যাংয়ের আড্ডায় আসক্তি  স্কুলপড়ুয়া রিফাতের ভবিষ্যৎ নিয়ে তাঁর পিতা-মাতার দুশ্চিন্তার কথা। রিফাতের পিতা-মাতার সঙ্গে এক দীর্ঘ আলাপে তাঁরা এ সকল তথ্য জানান,কিশোররা যাতে অযথা মোবাইল হাতে সন্ধ্যার পরে আড্ডায় সময় কাটাতে না পারে সে জন্য প্রশাসনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ কামনা করেন এই অভিভাবক।

 

এ ব্যাপারে মোরেলগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইদুর রহমান বলেন কিশোরদের সন্ধ্যার পর  আড্ডা, মোবাইল গেমে  আসক্তি হওয়ার বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখা হবে, সন্ধ্যার পরে কোন কিশোর বা স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থী রাস্তার পাশে,খোলা মাঠে বা কোন চায়ের দোকানে বসতে দেয়া হবে না,কিশোরগ্যাংয়ের আড্ডা দমনের ব্যাপারে মোরেলগঞ্জ থানা পুলিশ কঠোর অবস্থানে থাকবে এবং কিশোর গ্যাংয়ের আড্ডা দমনে আমাদের অভি্যান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি ।

 

এ ব্যাপারে মোরেলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জাহাঙ্গীর আলম জানান, প্রতিটি পরিবার  থেকে যদি কিশোরদের কঠোরভাবে নজরদারিতে রাখা যায় তাহলে এভাবে কিশোররা সন্ধ্যার পরে আড্ডা দিতে পারতো না, কিশোররা যাতে আড্ডা বা মোবাইলে  সময় না কাটায় সে জন্য অনেক মা বাবাই ভূমিকা রাখছেন, কিন্তু অসচেতন পরিবারের সন্তানরাই বেপরোয়া হয়ে উঠছে। কিশোর  গ্যাংয়ের আড্ডা বন্ধ করার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্হা গ্রহন করবে বলে যানান এ কর্মকর্তা।
 

একুশে সংবাদ/ফ.হো/এসএপি

Link copied!