ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারি, ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
Janata Bank
Rupalibank

মেয়র হানিফের কবরে সর্বজনের শ্রদ্ধা


Ekushey Sangbad
একুশে সংবাদ ডেস্ক
০৭:৪৬ পিএম, ২৮ নভেম্বর, ২০২১
মেয়র হানিফের কবরে সর্বজনের শ্রদ্ধা
ছবি: একুশে সংবাদ

ছবি: একুশে সংবাদ

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ঢাকা সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচিত মেয়র মোহাম্মদ হানিফের ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকীতে আজ (২৮ নভেম্বর) আজিমপুরস্থ মরহুমের কবরে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন সর্বস্তরের মানুষ।

আজ সকালে আজিমপুর কবরস্থানে মেয়র মোহাম্মদ হানিফের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে যান সর্বস্তরের মানুষ। সেই সঙ্গে মেয়র মোহাম্মদ হানিফের একমাত্র পূত্র বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচিত মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন ও দলের নেতা-কর্মীসহ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠন সমুহ, মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন, মেয়র মোহাম্মদ হানিফ স্মৃতি সংসদ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, একতা উন্নয়ন সংঘ সহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

আজিমপুর কবরস্থানে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন মেয়র মোহাম্মদ হানিফ জামে মসজিদে দোয়া মাহফিল আয়োজন করে। আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনসহ সকলস্তরের মানুষে এতে অংশ নেন।

এ ছাড়াও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ প্রয়াত নেতা মোহাম্মদ হানিফের কবর জিয়ারত ও দোয়া মাহফিল আয়োজন করে। এ সময়ে মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফী, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির, ঢাকা-৭ আসনের সাংসদ হাজী মোহাম্মদ সেলিম, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র শহিদুল্লাহ মিনু, নগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আকতার হোসেন, ধর্ম সম্পাদক ইসমাঈল হোসেন, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আবদুর রহমান ও বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের অরুণ সরকার রানা উপস্থিত ছিলেন।

নন্দিত এই নেতার একমাত্র পূত্র বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনিবাহী সদস্য ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচিত মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বাবার মৃত্যুবার্ষিকীতে দেশবাসীর কাছে দোয়া কামনা করেছেন। এ সময় শোকার্থ কন্ঠে মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেন, আমার প্রয়াত বাবার জন্য সবাই দোয়া করবেন। আমার বাবা জীবনে সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করে গেছেন। আমি তার সন্তান হিসেবে এই শহরের মানুষের কাছে, এই দেশের মানুষের কাছে দোয়া চাই।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও ঢাকা সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচিত মেয়র মোহাম্মদ হানিফ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্নেহধন্য ছিলেন। তার সততা, আন্তরিকতা, নিষ্ঠা ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের গুণে রাজনৈতিক জীবনের প্রতিটি পদে তিনি ছিলেন অত্যন্ত সফল একজন মানুষ। মোহাম্মদ হানিফের ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী পৃথক বাণী দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, ১৯৪৪ সালে ১এপ্রিল পুরান ঢাকার সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে আবদুল আজিজ ও মুন্নি বেগম দম্পতির ঘরে জন্মগ্রহণ করেন মোহাম্মদ হানিফ। ছাত্রাবস্থায় ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী হিসেবে রাজনীতি শুরু করেন। ১৯৬৫ সালে বঙ্গবন্ধুর একান্ত সচিবের দায়িত্ব পেয়ে ছয়দফা মুক্তি সনদ প্রণয়ন ও প্রচারে বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন। ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান ও মহান মুক্তিযুদ্ধে বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করেন মোহাম্মদ হানিফ। 

১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধুর ছেড়ে দেওয়া ঢাকা-১২ আসন থেকে জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হয়ে হুইপের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৬ সালে তিনি ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এই দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৯৪ সালে ৩০ জানুয়ারি ঢাকা সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে প্রথম মেয়র নির্বাচিত হন মোহাম্মদ হানিফ। 

তার নেতৃত্বেই ১৯৯৬ সালের মার্চ মাসে ‘জনতার মঞ্চ’ গঠিত হয়েছিল। যা ছিল আওয়ামী লীগের রাজনীতির জন্য একটি টার্নিং পয়েন্ট। স্বৈরাচার বিরোধী গণআন্দোলনে তারই নেতৃত্বে জনতার মঞ্চ গঠন হওয়া তৎকালীন বিএনপি সরকারের পতন ঘটিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনে ভূমিকা রেখেছেন মোহাম্মদ হানিফ। 

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা হলে তিনি মানবঢাল রচনা করে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে রক্ষার প্রাণান্তর প্রচেষ্টা চালান। গ্রেনেড হামলায় তিনি মারাত্মকভাবে আহত হওয়ার পর অসুস্থ অবস্থায় ২০০৬ সালের ২৮ নভেম্বর ঢাকার এ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেন।
প্রয়াত মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ছিলেন একজন বিচক্ষণ রাজনীতিবিদ। 

তার রাজনৈতিক প্রজ্ঞা বিচক্ষণতা দেশপ্রেম মানব হিতৈষী চিন্তাধারা অনুকরণীয় এবং অনুসরণীয়। মানুষের মুক্তি সংগ্রামে তিনি অকুতোভয় সৈনিক ছিলেন। ঢাকার মেয়র হিসেবে তিনি ঢাকার উন্নয়নে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে গেছেন যা ঢাকাবাসী আজও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করে।

প্রয়াত নেতার মৃত্যুবার্ষিকীতে বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে। এছাড়াও মেয়র হানিফের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকা ক্রোড়পত্র প্রকাশ করেছেন।

একুশে সংবাদ / হাফিজ