ঢাকা সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০২২, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. পডকাস্ট

যুদ্ধ চাইনা, শান্তি চাই, মানব-কল্যাণ চাই- জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী


Ekushey Sangbad
জিহাদুর রহমান জিহাদ
০৪:৩৪ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২
যুদ্ধ চাইনা, শান্তি চাই, মানব-কল্যাণ চাই- জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশনে বিশ্ব নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যুদ্ধ চাইনা, শান্তি চাই, মানব-কল্যাণ চাই, মানুষের অর্থনৈতিক উন্নয়ন চাই। আগামী প্রজন্মের জন্য উন্নত বিশ্ব নিশ্চিত করতে চাই।

 

শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশনের ভাষণে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অন্যান্যবারের মতো এবারও তিনি জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে বাংলায় ভাষণ দেন।  

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, টেকসই অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, সবার জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টি, অন্তর্ভুক্তিমূলক শান্তিপূর্ণ সমাজ এবং সামাজিক সম্প্রীতি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ। বিশ্বের দ্রুত বর্ধনশীল পাঁচটি অর্থনীতির মধ্যেও বাংলাদেশ এখন অন্যতম।

 

জিডিপির কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জিডিপির হিসাবে বাংলাদেশের অবস্থান ৪১তম। বিগত এক দশকে আমরা দারিদ্র্যের হার ৪১ শতাংশ থেকে ২০ দশমিক ৫ শতাংশে নামিয়ে এনেছি। আমাদের মাথাপিছু আয় মাত্র এক দশকে তিনগুণ বৃদ্ধি পেয়ে ২ হাজার ৮২৪ মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে।

 

সরকারপ্রধান বলেন, করোনার প্রাদুর্ভাবের আগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে আমাদের জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ছিল ৮ দশমিক ১৫ শতাংশ। এর আগে, আমরা টানা তিন বছর ৭ শতাংশের বেশি জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি। মহামারি চলাকালেও ২০২০-২১ অর্থবছরে বাংলাদেশের অর্থনীতি ৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ হারে প্রসারিত হয়েছে।


রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ এবং অর্থনৈতিক ও পাল্টা নিষেধাজ্ঞার ফলে সরবরাহ ব্যবস্থায় ব্যাঘাত এবং জ্বালানি, খাদ্যসহ নানা ভোগ্যপণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি পেয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, এ কারণে আমাদের মতো অর্থনীতি মারাত্মক চাপের মুখে পড়েছে। মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধি পেয়েছে। এ অবস্থা কাটিয়ে ওঠার জন্য আমরা বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করছি। ২০২৬ সালে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তীর্ণ হতে যাচ্ছে। আমরা ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি জ্ঞানভিত্তিক উন্নত দেশে রূপান্তরিত করার জন্য এবং ২১০০ সালের মধ্যে একটি সমৃদ্ধ ও জলবায়ু-সহিষ্ণু বদ্বীপে উন্নীত করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি।  


সর্বজনীন প্রাথমিক শিক্ষা, খাদ্য নিরাপত্তা, মা ও শিশু মৃত্যু হ্রাস, লিঙ্গ বৈষম্য, নারীর ক্ষমতায়ন ইত্যাদি ক্ষেত্রে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, গত এক দশকে বাংলাদেশে সাক্ষরতার হার ৫০ শতাংশ থেকে ৭৫ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। আমরা তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করতে গুরুত্বারোপ করেছি। মানুষের গড় আয়ু এখন ৭৩ বছরের বেশি। আমরা সমাজের সবচেয়ে দুর্বল ব্যক্তিদের প্রতি বিশেষ মনযোগ দিয়েছি, যাতে সমাজের কেউ পিছিয়ে না থাকে। স্বামী-পরিত্যক্তা নারী, বিধবা, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তি, তৃতীয় লিঙ্গ এবং অন্যান্য প্রান্তিক জনগোষ্ঠির সামাজিক ও আর্থিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিদ্যমান সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতা বাড়ানো হয়েছে। বর্তমানে প্রায় ১ কোটি ৭০ লাখ মানুষ সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় উপকৃত হচ্ছেন।


প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আমরা নদীর তলদেশের টানেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে এবং ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট সিস্টেমসহ টেকসই বৃহৎ অবকাঠামো নির্মাণ করছি। আমাদের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থায় সম্প্রতি যুক্ত হয়েছে আমাদের নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত পদ্মা বহুমুখী সেতু।  

 

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্যকে সহজতর করার পাশাপাশি আঞ্চলিক যোগাযোগ বৃদ্ধি এবং জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে ১ দশমিক ২৩ শতাংশ হারে অবদান রাখবে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।