ঢাকা মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. পডকাস্ট

শিবপুরে শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে গড়ে উঠেছে ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি


Ekushey Sangbad
শিবপুর উপজেলা প্রতিনিধি, নরসিংদী
০৫:৪৯ পিএম, ২৬ নভেম্বর, ২০২২
শিবপুরে শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে গড়ে উঠেছে ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি

স্কুল ও কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের বই পড়ায় আগ্রহ বাড়াতে কয়েকজন শিক্ষার্থীদের প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠা করা নরসিংদীর শিবপুরের পাঠ্যাভ্যাস চর্চা কেন্দ্রটি এখন ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরিতে রুপান্তরিত হয়েছে। ফলে এর প্রতিষ্ঠাতা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র ফোরকান আফ্রাদ তাদের চেষ্টা সফল হয়েছে বলে মনে করেন।

 

বই পড়ুয়া মানুষের কথা চিন্তা করে শিবপুরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের উত্তর-পশ্চিম পাশে সরকারি পাবলিক লাইব্রেরির একটি ভবন তৈরি করা হলেও অজ্ঞাত কারনে বন্ধ রয়েছে এর কার্যক্রম। তবে শিক্ষার্থীদের উদ্দ্যোগে প্রতিষ্ঠা করা পাঠ্যাভ্যাস চর্চা কেন্দ্রটি সফল বলে মনে করেন স্থানীয় শিক্ষাঅনুরাগীরা।

 

জানা গেছে, শিবপুরের সন্তান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ফোরকান আফ্রাদ শিবপুরের মানুষের জন্য কিছু করতে ইচ্ছে অনুভব করেন। তারপর অনেক চিন্তা- ভাবনা করে দেখলেন শিবপুরে একটি পাবলিক লাইব্রেরির প্রয়োজন। কিন্তু তার পক্ষে এটা করা সম্ভব নয়। ফলে বিষয়টি নিয়ে নিজের কয়েকজন সহপাঠী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের ছাত্র মোহাম্মদ উল্লাহ, ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের ছাত্রী নিশাত লায়লা, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) কেমিকেল ইন্জিংনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র নাজমুল আলম মাহিন, চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র স্বাগত দাস পার্থের সাথে আলোচনা করে সর্বসম্মতিক্রমে শিবপুরে পাঠ্যাভ্যাস চর্চা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেন।

 

২০২০ সালের ১লা জুলাই পাঠ্যাভ্যাস চর্চা কেন্দ্র থেকে ভার্চুয়াল লাইব্রেরি স্থাপন করে বই বিতরণ শুরু করা হয়। এক পর্যায়ে ২০২১ সালে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ভ্রাম্যমান লাইব্রেরি কর্মসূর্চীর সাথে যুক্ত হয় ভার্চুয়াল লাইব্রেরি। বর্তমানে এর সদস্য সংখ্যা ৩২ জন। এই ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি থেকে প্রতি শনিবার সকাল সাড়ে দশটা থেকে সাড়ে এগারটা পর্যন্ত বিনামূল্যে বই ধার দেওয়া হয়।

 

বর্তমান সময়ে হুমায়ুন আহম্মেদ ও মুহাম্মদ জাফর ইকবালের বই গুলি পড়তে বেশি পছন্দ করেন পাঠকরা। তবে যারা পুরানো পাঠক তারা শরৎ, বিভূতি ও মানিকের লেখা পড়তে পছন্দ করেন বেশি।

 

ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরির কয়েকজন পাঠক বলেন, আমাদেরকে বই পড়ার সুযোগ করে দেওয়ায় আমরা প্রতিষ্ঠাতাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।

 

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে পাঠ্যাভ্যাস চর্চা কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ফোরকান আফ্রাদ বলেন, শিবপুরকে মননশীল, আধুনিক ও জ্ঞানভিত্তিক জনপদ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার জন্য আমার কাছে সবচেয়ে ভালো উপায় মনে হয়েছে বই পড়া কার্যক্রম সম্প্রসারণ করা। আর আমি ব্যক্তিগতভাবে বই প্রেমী একজন মানুষ।

 

শিবপুরে একটি পাবলিক লাইব্রেরি রয়েছে কিন্তু দুর্ভাগ্য যে সেটি বন্ধ। তাই ভাবলাম নিজেরাই একটি লাইব্রেরি চালু করে মানুষকে বই পড়ার সুযোগ করে দেই। মূলত সেই কারণেই পাঠ্যাভ্যাস চর্চা কেন্দ্রটি চালু করা হয়। আমরা এখনো আশাবাদী শিবপুরে একটি পাবলিক লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করতে পারবো। সেই জন্য ইতিমধ্যে স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব জহিরুল হক ভূঁইয়া মোহন সাহেবের সাথে আলোচনা করা হয়েছে। তিনি সকল প্রকার সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়েছেন।

 

একুশে সংবাদ/মা.খা.প্রতি/পলাশ