ঢাকা শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০২২, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. পডকাস্ট

শিক্ষক দিবস নিয়ে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ভাবনা


Ekushey Sangbad
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি
১২:০৮ পিএম, ৬ অক্টোবর, ২০২২
শিক্ষক দিবস নিয়ে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ভাবনা

১৯৯৫ সাল থেকে প্রতিবছরের ৫ অক্টোবর বিশ্বব‍্যাপী পালিত হয়ে থাকে বিশ্ব শিক্ষক দিবস। বিশ্বের ১০০টি দেশে এই দিবসটি পালিত হয়ে থাকে। ইউনেস্কোর মতে, বিশ্ব শিক্ষক দিবস শিক্ষা ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে শিক্ষকদের অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ পালন করা হয়।  আজকে থাকছে শিক্ষক দিবস সম্পর্কে শিক্ষক -শিক্ষার্থীদের ভাবনা।

 

 

Jannatul Ferdous

Senior Teacher ;Viqarunnisa Noon School & College

Immense respect for all the educators of the world. Happy Teachers’  Day to all my Teachers and Colleagues. We can understand the highest rank of teachers from the Quote of Ali (RA) the fourth Caliph of Islam, in which He stated that:

 

“If a person teaches me one single word, he has made me his servant for a lifetime.“

 

I firmly belive the foundation of todays ‍‍`Me‍‍` is nothing but an accumilated effort of my family, and my Teachers.

 

My students, you are the reason why I’m a Teacher. You make me fall in love with this profession each and every day, again and again. So on the occasion of the Teacher’s Day, I greet you all for this wonderful life of a teacher.

 

প্রফেসর ড. আইনুল ইসলাম, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, অর্থনীতি বিভাগ

 

শিক্ষক সম্পর্কে এখনো কিছু বলার আগে আমি অনেকবার ভাবি। শিক্ষকের ভূমিকা কখনও অল্প কিছু বাক‍্যে বলে শেষ করা যায় বলে আমার মনে হয় না। তারা দেশ গড়ার কারিগর। একজন শিক্ষকের অবদানে গড়ে উঠছে আগামী দিনের ভবিষ্যত।আজকাল যেটা আমার কাছে খারাপ লাগে অনেক শিক্ষার্থী মনে করে শিক্ষক শুধু টাকা নিচ্ছে আর পড়াচ্ছে আসলে তা নয়। আমাদের মূল লক্ষ্য থাকে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা। আজকাল শিক্ষার্থীদের আগ্রহ বাড়ছে শিক্ষার প্রতি কিন্তু তাদের পড়ালেখা অনেকটা জব কেন্দ্রীয় হয়ে যাচ্ছে।তা হয়তো পারিপাশ্বিক অবস্থার জন‍্যই তারা বাধ‍্য হচ্ছে। 

 

আজকাল দেখা যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের তারা যে বিষয়েই পড়ুক না কেন চাকরি ক্ষেত্রে বি সি এস কেই প্রাধান্য দিচ্ছে। এতে তাদের পড়াশোনা একমুখী হয়ে যাচ্ছে। যা ভবিষ্যতে তাদের জন‍্য এবং দেশের জন‍্য ক্ষতির কারন হবে। আজকাল শিক্ষার্থীদের  প্রশ্ন করার আগ্রহ অনেকটাই কমে গিয়েছে বলে আমি মনে করি। একজন শিক্ষক হিসাবে আমি মনে করি শিক্ষক সবথেকে খুশি হয় যখন তার ছাত্র বা ছাত্রী তার কাছে জানার আগ্রহ প্রকাশ করে। প্রশ্ন করার মাধ্যমে জ্ঞানের প্রসার ঘটে। একজন শিক্ষক শিক্ষার্থীদের পথ প্রদর্শক আমি মনে করি শিক্ষার্থীদের উচিত সেই পথপ্রদর্শকের কাছ থেকে সঠিক পথের নির্দশনা সঠিকভাবে আয়ত্ব করে নেওয়া। তাহলেই তারা জীবনে উন্নতি করতে পারবে।

 

আবুল আফফান মুহাম্মদ ওসমান গ্রাজুয়েট ;ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

 

ছাত্রজীবনে শিক্ষকের ভূমিকা অতুলনীয়। আমার বাবা একজন শিক্ষক। ছোট্ট বেলা থেকে আমি এটাই দেখে বড় হয়েছি ছাত্রদের সৎ পথে পরিচালিত করাকেই তিনি তার প্রধান কর্তব্য হিসাবে মনে করে নিয়েছেন। আমার বাবাকে আমি সবসময়ই ভয় পেতাম এই ভয় অনেকটা সম্মান থেকেই আসা। এটি অনেকটা এরকম যে যেই মানুষ কে আমি সম্মান করি সে যেন আমার কোনো ভুলে কষ্ট না পায়।

 

আমার বাবাকে দেখতাম যে কিনা সামান্য কথাতেই রেগে যেত সেই মানুষ টাই তার শিক্ষার্থীদের কিছু বুঝানোর সময় নিরলস ভাবে মিষ্টি ভাষায় শিখিয়ে যেতেন। কোনো ক্লান্তি কখনও দেখিনি শিক্ষার্থীদের বুঝানোর সময়।মাদ্রাসার শিক্ষার্থী হিসাবে মাদ্রাসার শিক্ষকদের এবং প্রাচ‍্যের অক্সফোর্ড ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কাছ থেকে পেয়েছি। আমার কাছে শিক্ষক মানেই শিক্ষার্থীদের পরম আত্মীয়। জীবনে চলার পথে আমাদের জীবনের পথকে সহজতর করে শিক্ষকদের শিক্ষা।

 

আজকে আমি এক জেলা থেকে অন‍্য জেলায় কর্মক্ষেত্রের জন‍্য অবস্থান করি। বাবা মায়ের সাথে খুব একটা সময় আমার কাটানো হয়নি। আমার জীবনের বেশিরভাগ সময় কেটেছে শিক্ষকদের সাথে। শিক্ষকেরা কখনও তাদের সন্তানতূল‍্য ছাত্র ছাত্রীকে ভুল পথে পরিচালিত করেনা। আজকে কর্মক্ষেত্রে সময়ানুবর্তিতা বজায় রাখতে হয়, নিজের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে হয়। এইসব জিনিসই আমি আয়ত্ব করেছি আমার শ্রদ্ধেয় শিক্ষকদের থেকে। আমাদের কোরআনে হাফেজ তৈরি করার জন‍্য তাদের কী অক্লান্ত পরিশ্রম তাও আমি দেখেছি। খুব ভোরে উঠে শক্ত হয়ে আমাদের শিক্ষা দিতেন যার ফল আজ এবং ভবিষ্যতে আমরাই ভোগ করব। আমার কাছে শিক্ষকদের শিক্ষার গুরুত্ব টাকায় পরিমাপ করে শেষ করা যাবেনা বলে মনে হয়। তার পরিশ্রম দায়িত্বের মূল্য আমার কাছে অমূল্য।

 

তিনি জীবনে শুধু পাঠ‍্যবইয়ের শিক্ষাই দিয়ে যান তেমনটা নয় তিনি নিজের জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে আমাদের শিক্ষা দিয়ে যান কোনটা ভালো কোনটা আমরা গ্রহণ করব আর কোনটা খারাপ যেটা আমরা বর্জন করব। অর্থাৎ তার প্রথম প্রধান উদ্দেশ্য থাকে যেন আমরা কোনোভাবেই ভুল পথে পরিচালিত না হই। আমার আরো একটা চাওয়া আছে আমরা যেন শুধু এই একটা দিনেই শিক্ষকদের সম্মান না দেখাই। তাদের সম্মান সারাবছর ই যেন সমান ভাবে থাকে। এখনো দেশে এমপিও ভুক্ত হয়নি এমন অনেক শিক্ষক আছেন যারা অনেক কষ্টে জীবন যাপন করছে। তাদের দিকে আমাদের দৃষ্টি দেওয়া উচিত। শিক্ষকের অবদান  কখনও টাকাতে বিচার করা সম্ভব না। আমাদের দেশে যেন শিক্ষকের অবস্থান সব পেশার উপরেই থাকে সেই ব‍্যবস্থা করা উচিত বলে আমি মনে করি।

 

আব্দুল্লাহ আল-রাফী; মাস্টারমাইন্ড ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল

 

বাবা মায়ের পরেই শিক্ষকদের ভূমিকা আমি মনে করি। আজকাল তিনবছর বয়সেই বাবা মা সন্তানদের স্কুলে পাঠিয়ে দেয়। সে সময় তাদের বন্ধু বলতে তেমন কেওই থাকেনা। তারা শিক্ষকেই কাছে পায়। শিক্ষকদের সাথেই তাদের বন্ধুত্ব গড়ে উঠে। সে সময় সবকিছুই তারা শিক্ষকদের থেকেই আয়ত্ব করে। একজন শিক্ষক তার ছাত্রকে শ্রেষ্ঠ শিক্ষা দিতে পারে। বেস্ট ফ্রেন্ড হয়ে ছোট্ট শিক্ষার্থীর। একেক জন শিক্ষক একেক জন শিক্ষার্থীর কাছে একেক রকম। যাকে সবাই ভয় পায় সেই শিক্ষক ও অনেক সময় একজন শিক্ষার্থীর বিপদে সবার প্রথমে এসে দাড়াঁতে পারে। প্লে-গ্রুপ থেকে আমাদের সম্পর্ক গড়ে উঠে শিক্ষকদের থেকে। আমার জীবনে রাশেদ স‍্যারকে আমরা অনেক ভয় পাই কিন্তু আমার কাছে ভালো লাগে দিনশেষে তিনি আমাদের যতই বকা দিক না কেন উনি আমাদের ভালো চায়। কোনো কিছুতে তিনি যখন আমাকে ডাকে ওই জিনিসটা আমার খুব ভালো লাগে। আমি আরো ও চেষ্টা করি তার এই ভরসা টা ধরে রাখার জন‍্য।

 

একজন শিক্ষার্থীর কাছ থেকে শিক্ষক শুধু সম্মানটাই আসা করে। আজকে শুধু শিক্ষক দিবসে নয় সবসময়ই আমরা যদি তাদের সম্মান করি তাহলে সেটাই তাদের কাছে তৃপ্তির। তাদের জন‍্য একটা সুন্দর উক্তি একটা কথা তাদের মনকে ভরিয়ে দিবে আর সেই শিক্ষকদের খুশি মনের দোয়া একজন শিক্ষার্থীর জীবনের জন‍্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ বলে আমি মনে করি।আমরা অনেক সময় শিক্ষকদের এবং বাবা মাকেও ভিলেন ভাবি যেটা করা একদমই উচিত না। তাদের ভূমিকা বাবা মায়ের পরই বলে আমি মনে করি। Thay are the formal structure of our study.They are the backbone of our morality.

 

 

জান্নাতুল আদন রুপন্তী; ভিকারুননিাসা নূন স্কুল এন্ড কলেজ

 

"শিক্ষক" শব্দটি আমাদের সকলের কাছে অনেক শ্রদ্ধেয়। কেননা একজন জাতির কারিগর কিংবা হাতে-খড়ির মানুষটিকেই আমরা শিক্ষক বলে‌ সম্মোধন করি। প্রত্যেকটি মানুষের জীবনেই শিক্ষক একজন ম্যাজিশিয়ান এর মত বড় পর্যায়ে নিয়ে যেতে অত্যন্ত ভূমিকা রাখেন। আমাদের জীবনে পিতা মাতা এরপর ই শিক্ষকের স্থান। কেননা পিতা মাতার মতই শিক্ষকও আমাদের নিঃস্বার্থভাবে অক্লান্ত পরিশ্রম দিয়ে প্রতিটি মুহূর্তে জ্ঞান অর্জনে সহায়তা করছেন। তারাও আমাদের নিজ সন্তানদের মতোই দেখেন। মাতা-পিতা যেমন সন্তানদের সুন্দর মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার দায়িত্ব পালন করেন, একজন শিক্ষক ও তেমনি শিক্ষার্থীর জীবনে পূর্ণাঙ্গ রূপে প্রতিষ্ঠার দায়িত্ব পালন করে।

 

"একজন শিক্ষার্থীর মা হলেন তার প্রথম শিক্ষক আর একজন শিক্ষক করছেন তার দ্বিতীয় মা"‌ -মহাত্মা গান্ধী

 

শুধুমাত্র পাঠ সংক্রান্ত বিষয় নয়, আমাদের ন্যায় বিচার সত্যবাদিতা ,নিষ্ঠা ,পরিশ্রমী, বিনয়ী, ধর্মীয়ভাবে বলতে গেলে প্রায় সকল ভাবেই শিক্ষক আমাদের অনুপ্রাণিত করে যান। জীবনে motivation মূলক বার্তার মাধ্যমে ও তারা আমাদের পদে পদে শিক্ষিত করছেন। কথায় আছে "শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড" আর এই মেরুদন্ডের মূল কারিগর হলো শিক্ষক। শিক্ষকদের শ্রদ্ধা করা আমাদের দায়িত্ব এবং কর্তব্যের মধ্যে একটি। শিক্ষকদের মধ্যে আমরা আমাদের প্রিয় শিক্ষককে অনুকরণ করতে সব সময় পছন্দ করি। এমনকি তাদের সাথে আমরা কথা বলতে দ্বিধাবোধ করি না। সেক্ষেত্রে এমন অনেক বিষয় রয়েছে যা আমরা জড়তা কিংবা ভয় এর জন্য আমাদের আত্মীয় মাতা পিতা কে বলতে না পারলেও শিক্ষকের মাধ্যমে তার সমাধান ঠিকই পেয়ে যায়।

 

জীবনে অনেক বড় পর্যায়ে পৌঁছানোর পর এই শিক্ষকদের কথা আমাদের অবশ্যই মনে রাখতে হবে সম্ভব হলে তাদের সাথে দেখা করে অন্তত একবার ধন্যবাদ বলতে হবে কেননা আমাদের এই সাফল্যের পেছনে আমাদের শিক্ষক অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন।

"যদি তুমি জীবনের সাফল্য অর্জন করে থাকো তাহলে মনে রাখবে তোমার পাশে একজন শিক্ষক ছিল যে তোমাকে সাহায্য করেছিলো" -বারাক ওবামা

 

তাই শিক্ষকদের প্রতি সম্মান শ্রদ্ধা ভালবাসা সকল কিছুই একজন শিক্ষার্থীকে বজায় রাখতে হবে।

 

প্রিয় নবী মুহাম্মদ (সা.) ইরশাদ করেন- "তোমরা জ্ঞান অর্জন করো এবং জ্ঞান অর্জনের জন্য আদব শিষ্টাচার শিখো এবং যার কাছ থেকে তোমরা জ্ঞান অর্জন করো তাকে সম্মান কর" (আল মুজামুল আওসাত , হাদিস নং:৬১৮৪)।

 

তাই আজ ৫ই অক্টোবর শিক্ষক দিবস উপলক্ষে আমার জীবনে অগ্রণী ভূমিকা রাখা সকল শিক্ষক কে জানাই শিক্ষক দিবসের অসংখ্য শুভেচ্ছা। যাদের কাছ থেকে আমি জীবনে অনেক কিছু শিখতে পেরেছি এবং এখনো শিখে যাচ্ছি আর এজন্য আমি সারা জীবন কৃতজ্ঞ থাকব।

 

Dear teachers,thanks for supporting and enlightening all our way and making us what we are today...

THANK YOU FOR EVERYTHING

HAPPY TEACHERS DAY ♥️

 

আনিকা ইশরাফ ইকরা, অর্থনীতি বিভাগ; জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

 

শিক্ষকের গুরুত্ব আমার জীবনে এমন যা আমি লিখতে লিখতে যদি বই ও হয়ে যায় তাও মনের মতো করে শেষ করতে পারব বলে আমি মনে আমি মনে করিনা। একজন শিশু জন্মের পর আস্তে আস্তে সব শিখে তার এই পৃথিবীতে ভালোভাবে টিকে থাকা নির্ভর করে তার অর্জিত শিক্ষার উপর। আজকের শিক্ষা তার ভবিষ্যতের সঞ্চয় সেই সঞ্চয় তৈরি করে দিচ্ছেন একজন শিক্ষক। আমার জীবনে শিক্ষকের ভূমিকা একটু বেশিই। শিক্ষক যে শুধু শিক্ষা দেয় তা নয় তাদের মোটিভেশনও আমাদের জীবনের জন‍্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আমার এখনো মনে আছে আমি যখন এস এস সি দিব তখন আমি রাতে ঘুমাতে পারতাম না আমার স্কুল ভিকারুননিসা নূন স্কুলের মূল দিবা শাখার ফাতেমা নাসরিন আপার কথা মনে হয়ে তিনি আমাদের ফেয়ারওয়েলে বলেছিলেন আমাদের ব‍্যাচটা তার চাকরি জীবনের শেষ ব‍্যাচ তিনি আমাদের ব‍্যাচের সবার ভালো রেজাল্ট দেখে যেতে চান। এটাই আমাদের কাছে তার চাওয়া ছিল।

 

একজন শিক্ষক তার ছাত্রীদের কতটা ভালোবাসলে এভাবে বলতে পারে তা হয় তখনই আমি খানিকটা বুঝতে পেরেছিলাম। তাই তার ইচ্ছাকে বাস্তবে পরিণত করার জন‍্য নিজের ঘুমটাও বিসর্জন দিতে এতটুকু কষ্ট হয়নি। আসলে কিন্তু জীবন তৈরি হবে আমার কিন্তু সবচেয়ে বেশি হয়তো আমার শিক্ষকেরাই খুশি হবে।শিক্ষক শব্দটির ওজন এতটাই বেশি যাকে খুব সহজে ব‍্যাখা করে শেষ করা যাবেনা। আমি তো একজনের কথা বললাম কিন্তু এমন ও কিছু শিক্ষক আমার জীবনে আলোর সারথী হয়ে বার বার এসেছে যাদের অবদান বলে শেষ করা যাবেনা। একটা দিনে শিক্ষকের সম্মান না করে প্রত‍্যেকটা শিক্ষার্থীর হৃদয়ে অবস্থান দিতে হবে শিক্ষকদের। তাহলেই একটা জাতির উন্নতি করা সম্ভব বলে আমি মনে করি।

 

সাঈমা আক্তার, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ- তৃতীয়  বর্ষ; জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা

 

শিক্ষকরা জাতির প্রধান চালিকাশক্তি। পৃথিবীতে মাতা-পিতার পরেই শিক্ষকদের স্থান। মাতা-পিতা শিশুকে জন্ম দেন আর শিক্ষক তাকে মানুষরূপে গড়ে তোলেন।শিক্ষকরা মানুষ গড়ার কারিগর।শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ দিয়ে মানুষের প্রতিভার বিকাশে অগ্রণী ভূমিকা রাখেন শিক্ষক। আর শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ দেয়ার এ গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বটি পালন করেন বলেই শিক্ষকেরা সবার কাছে সম্মানীত। যুগে যুগে কালে কালে বিভিন্ন ধর্মমতে পথভ্রষ্ট জাতিকে আলোর পথে ফিরিয়ে আনার জন্য মহান সৃষ্টিকর্তা মহামানবদেরকে শিক্ষক হিসেবে প্রেরণ করেছিলেন। জ্ঞান বিজ্ঞান ,তথ্য প্রযুক্তি,ধর্মীয় মূল্যবোধ সহ সকল জ্ঞান ভান্ডারের সাথে জাতি পরিচিত হতে পারে একমাত্র শিক্ষকের মাধ্যমে ।

 

দেশব্যাপী শিক্ষকদের বৈধ অধিকার ও মর্যাদা সুরক্ষা করা, শিক্ষকদের জীবনের মান উন্নত করার ব্যাপারে বিভিন্ন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ, আদর্শ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর মধ্যে সুন্দর সম্পর্ক তৈরি এবং শিক্ষাঙ্গনে সুষ্ঠু শিক্ষার পরিবেশ সৃষ্টি করতে সচেষ্ট হওয়া সময়ের অনিবার্য দাবি। জাতি গড়ার কারিগর শিক্ষকদের সর্বক্ষেত্রে মর্যাদা এবং মূল্যায়ন করা জরুরি। শিক্ষকদের মূল্যায়ন ছাড়া সুশিক্ষিত সমাজ বিনির্মাণ করা সম্ভব নয়।

 

একুশে সংবাদ.কম/আনিকা ইশরাফ ইকরা/জা.হা