ঢাকা শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
Ekushey Sangbad
Janata Bank
করোনাভাইরাস মোকাবিলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ৩১ নির্দেশনা

কপিরাইটের ফাঁদে চঞ্চল-শাওনের ‘সর্বত মঙ্গল রাধে’


Ekushey Sangbad

অক্টোবর ২২, ২০২০, ১২:৫৬ পিএম
কপিরাইটের ফাঁদে চঞ্চল-শাওনের ‘সর্বত মঙ্গল রাধে’

অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী ও অভিনেত্রী শাওনের কণ্ঠে গাওয়া ‘সর্বত মঙ্গল রাধে’ শিরোনামের গানটি কপিরাইট ইস্যুতে সরিয়ে নিয়েছে ইউটিউব। আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের উদ্যোগে ‘আমাদের গান’ শিরোনামে লোকজ সংগীত অনুষ্ঠানের তৃতীয় পরিবেশনা হিসেবে মঙ্গলবার ইউটিউব ও ফেইসবুকে মুক্তি পায় গানটি।

ইউটিউব ও ফেইসবুকে প্রকাশের পরপরই চঞ্চল-শাওনের কণ্ঠে গাওয়া গানটি সামজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রশংসা পায় এবং অল্প সময়েই ভাইরাল হয়ে যায়। তবে প্রকাশের কিছু সময় পর কপিরাইট ইস্যুতে গানটি সরিয়ে নেয় ইউটিউব। এরপর থেকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমজুড়ে শুরু হয় বিতর্ক।

জানা গেছে, ‘সর্বত মঙ্গল রাধে’ গানটি ব্যান্ডদল সরলপুরের। কিন্তু চঞ্চল-শাওনের কণ্ঠে গানটি পরিবেশনের সময় সংগৃহীত গান হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া অনুমতি নেওয়া হয়নি ব্যান্ডদলটিরও। এরপর ব্যান্ডদলটির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও প্রধান গিস্টারিস্ট তরিকুল ইসলাম তপনের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে চঞ্চল-শাওনের কণ্ঠের গানটি সরিয়ে নিয়েছে ইউটিউব।

সরলপুর ব্যান্ডের প্রধান শিল্পী মার্জিয়া তুরিন ও প্রধান গিটারিস্ট তরিকুল ইসলাম তপন তাদের ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তায় সব মাধ্যম থেকে আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেডকে গানটি সরিয়ে নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন। অন্যথায় আইন অনুসারে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে জানিয়েছে ব্যান্ডদলটি। গানটির কপিরাইটের কাগজপত্রসহ লিখিত বিবৃতি প্রকাশ করার কথাও জানান তারা।  
তপন বলেন, এই গানটি আমরা আনরিলিজড ট্র্যাক হিসেবে মুক্তি দিয়েছি। এখনো কোনো অ্যালবামে এটা আমরা দেইনি। তাই আমরা কোনো মতেই চাই না, আমাদের আগে কেউ এই গানটি প্রকাশ করুক।

তুরিনও একই অভিমত ব্যক্ত করে বলেন, এখনো অনেক পেজ থেকে আইপিডিসির গানটি শেয়ার দেয়া হচ্ছে। আমরা চাই না এই গানটি ছড়িয়ে যাক। তাই সবাইকে আমরা এই গানটি শেয়ার দেয়া থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ জানাই।

অভিযোগ প্রসঙ্গে আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে এক লিখিত বিবৃতিতে তারা জানিয়েছে, ‘ক্রিয়েটো’র পরিচালনায় আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের পৃষ্ঠপোষকতায় আয়োজিত ‘আমাদের গান’ প্রকল্পের একটি গানের কপিরাইট দাবি করার বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য আমরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এবং স্টেকহোল্ডারদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছি। আশা করছি, দ্রুত এ বিষয়টির সমাধান হবে এবং সে পর্যন্ত আমাদের দর্শক-শ্রোতাদের ধৈর্য সহকারে অপেক্ষা করার অনুরোধ করছি।

এর আগে ২০১৮ সালেও গানটিতে অনুমতি ছাড়া সংগীতশিল্পী সুমি মির্জা কণ্ঠ দিলে একই অভিযোগ এনেছিল ব্যান্ডদল সরলপুর।

একুশে সংবাদ/দে.রু/এআরএম