AB Bank
ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. রাজধানী

বাজেট: দাম বাড়তে পারে যেসব পণ্যের


Ekushey Sangbad
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
০৮:৪৮ পিএম, ৫ জুন, ২০২৪
বাজেট: দাম বাড়তে পারে যেসব পণ্যের

২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটে জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন পর্যায়ের হাটবাজারের ইজারামূল্য কিছুটা বাড়বে। সেই সঙ্গে বাড়বে জমির নামজারির মাশুল। মোবাইল কোর্টসহ যেসব খাতে সরকার জরিমানা ও দণ্ড আরোপ করে, সেগুলোর পরিমাণও বাড়ানোর চিন্তা রয়েছে সরকারের। এসব ছাড়াও উড়ালসড়ক, এক্সপ্রেসওয়েসহ বিভিন্ন সেতু পারাপারের টোল, সেবা ও প্রশাসনিক মাশুল এগুলোও বাড়ানো হতে পারে। উল্লেখিত খাত থেকে সরকার মোট ৫৫ হাজার কোটি টাকা আদায় করতে চায়, যা চলতি অর্থবছরের চেয়ে ৫ হাজার কোটি টাকা বেশি।

সরকারের রাজস্ব আয়ের প্রধান তিনটি উৎস হচ্ছে আয়কর, মূল্য সংযোজন কর ও শুল্ক। এইসব উৎস থেকে আয় সংগ্রহের দায়িত্ব জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের। এর বাইরেও অন্যতম একটি খাত রয়েছে সরকারের রাজস্ব আয় সংগ্রহের, যেটাকে সরকার বলে, কর ব্যতীত প্রাপ্তি (নন-ট্যাক্স রেভিনিউ)। সংক্ষেপে তা এনটিআর নামে পরিচিত।

বাংলাদেশে বর্তমানে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) তুলনায় রাজস্ব সংগ্রহের হার ৮ শতাংশের কম। ২০২৩ সালের ৩০ জানুয়ারি ৪৭০ কোটি মার্কিন ডলারের ঋণ কর্মসূচি অনুমোদনের সময় আইএমএফ বলে দিয়েছিল, বাংলাদেশকে রাজস্ব-জিডিপির হার বছরে দশমিক ৫ শতাংশ হারে বাড়াতে হবে। এনটিআরের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করার সময় অর্থ বিভাগ সেটিও বিবেচনায় রেখেছে বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, মন্ত্রণালয় ও দপ্তরগুলো প্রজ্ঞাপন জারি করে এসব মাশুল বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেবে। যেসব মাশুলে সরকার কয়েক বছর ধরে হাত দেয়নি, সেগুলোর ব্যাপারেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে আগে। বেশকিছু মাশুল কার্যকর করা হবে ১ জুলাই থেকেই। আবার অনেক ক্ষেত্রে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা তারিখ অনুযায়ী কার্যকর করা হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে প্রকাশ, ‘এনটিআরের বেশ কিছু জায়গায় মাশুল বৃদ্ধির সুযোগ আছে এবং মূল্যস্ফীতি বিবেচনায় তা বাড়ানো দরকার। উদাহরণ দিয়ে বলা হয়, ভুল জায়গায় গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য ২০০ টাকা জরিমানার বিধান থাকলে তা বাড়িয়ে ৫ হাজার টাকা করতে হবে। এতে সরকারের আয় বাড়বে, শৃঙ্খলাও ফিরে আসবে।’

সূত্র জানায়, চলতি ২০২৩–২৪ অর্থবছরের মূল বাজেটে এনটিআর থেকে ৫০ হাজার কোটি টাকা সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে সরকার। এর আগের ২০২২–২৩ অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪৫ হাজার কোটি টাকা। আগামী অর্থবছরের মূল বাজেট থেকে ৫৫ হাজার কোটি টাকা ধরা হলেও শেষ পর্যন্ত বাড়িয়ে তা ৬০ হাজার কোটি টাকার কাছাকাছিও করা হতে পারে। যদিও চার অর্থবছর আগেই এনটিআর থেকে ৫৮ হাজার ৮৬২ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে সরকার।
মাশুল বাড়াতে অধিদপ্তর ও পরিদপ্তরগুলোকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের অনুমতি নিতে হয়। অর্থ বিভাগ সূত্র জানায়, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে জানানো হয়েছে, তারা যেন এনটিআর বৃদ্ধির প্রস্তুতি নেয়। এ জন্য উল্লেখযোগ্য মন্ত্রণালয়গুলো হচ্ছে বাণিজ্য, ভূমি, প্রাণিসম্পদ, রেলপথ, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন এবং পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় ইত্যাদি। জানা গেছে, কয়েকটি মন্ত্রণালয় ও দপ্তর এরই মধ্যে কিছু দাম বাড়িয়েছে। যেমন ওয়াসা সম্প্রতি পানির দাম বাড়িয়েছে। কোনো কোনো দপ্তরেরও মাশুল বৃদ্ধির প্রস্তাব প্রক্রিয়াধীন।

বিভিন্ন বাহিনীর জন্য বহু বছর ধরে রেশনসহ কিছু পণ্যের দর বাড়ানো হচ্ছে না। অর্থ বিভাগের সূত্রগুলো জানায়, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ও এর অধীন সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ, সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমানবাহিনী এবং আন্তঃবাহিনী দপ্তর এ বিষয়ে অর্থ বিভাগকে ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছে।


একুশে সংবাদ/হ.ক.প্র/জাহা

Link copied!