ঢাকা শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর, ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
ekusheysangbad QR Code
BBS Cables
Janata Bank
  1. জাতীয়
  2. রাজনীতি
  3. সারাবাংলা
  4. আন্তর্জাতিক
  5. অর্থ-বাণিজ্য
  6. খেলাধুলা
  7. বিনোদন
  8. শিক্ষা
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. অপরাধ
  11. প্রবাস
  12. পডকাস্ট

মদনে বন্যায় ৩১ কোটি টাকার ক্ষতি


Ekushey Sangbad
জেলা প্রতিনিধি, নেত্রকোণা
০৩:৪৭ পিএম, ৭ আগস্ট, ২০২২
মদনে বন্যায় ৩১ কোটি টাকার ক্ষতি

ছবি: সংগৃহীত

নেত্রকোনার মদনে দীর্ঘ বন্যায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তের ( এলজিইডি) সড়ক ও ব্রীজ কালভার্ট ভেঙে  প্রায় ৩১ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তলিয়ে যাওয়া সড়ক গুলোতে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্ত। পানির ঢেউয়ে অনেক সড়কের পাশের মাটি ভেঙে গেছে।  বন্যার পানি ধীরে ধীরে নামতে থাকায় দৃশ্যমান হয়ে উঠতে শুরু করেছে এসব ক্ষতির পরিমান। রাস্তাঘাট ও ব্রীজ কালভার্টের ভয়াবহ ক্ষতির কারণে ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারন মানুষ। 

উপজেলা এলজিইডি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, বন্যার পানিতে প্রাই দুই মাস ধরে তলিয়ে ছিল অনেক রাস্তা ঘাট। যার ফলে এলজিইডির ১০টি রাস্তায় ৬০ কিলোমিটার ভেঙে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে যায়। যার টাকায় ক্ষতির পরিমান  প্রায় ২৯ কোটি টাকা। বটতলা হতে বাড়রী, কাইটাইল বাজার হতে বাশরী বাজার, নায়েক পূর্ব পাড়া হতে বাশরী বাজার পর্যন্ত, তিয়শ্রী তাড়াইল রাস্তায় ধানকুনিয়া ফেরি ঘাট পর্যন্ত, তিয়শ্রী হতে মিলন বাজার পর্যন্ত, মদন হতে ফতেপুর, ফতেপুর হতে ধানকুনিয়া, ফতেপুর হতে চত্রকোনা পাকা বাড়ি রাস্তা, মদন হতে বাড়িভাদেরা তেলিগাতি রাস্তা, মদন বৈশ্যবাড়ি রোড পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্থ রাস্তা গুলো উপজেলায় যাতায়াতের প্রধান সড়ক।  এই রাস্তা গুলো দিয়ে প্রতিদিন হাজারো মানুষ যাতায়াত করে। এছাড়াও বাশরী বাজার বক্স কালভার্ট, মদন রাস্তায় ব্রীজ, মদন যতীন্দ্রগঞ্জ ব্রীজ ক্ষতিগ্রস্থ হয়। যার পরিমাণ  ৩ কোটি টাকা। 

পথচারী মানু মিয়া জানান, আমি বটতলা থেকে বাড়রী সড়ক দিয়ে চলাচল করি। কিন্তু বন্যায় সড়কটি তলিয়ে গিয়ে অনকে ভেঙে যায়। আমাদের যাতায়াতের খুব কষ্ট হচ্ছে।  

উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী মোঃ গোলাম কিবরিয়া পিয়াল জানান,  বন্যার কারনে মদনে আমাদের (এলজিইডি) সড়ক ও ব্রীজের  অনেক ক্ষতি হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে আমরা ক্ষতির একটি তালিকা তৈরি করেছি। ক্ষতির পরিমান আরো বাড়তে পারে। এগুলো দ্রুত মেরামত করার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে ।

 

 

একুশে সংবাদ/সা.খা/এস.আই