ঢাকা রবিবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২২, ১০ মাঘ ১৪২৮

সরকার নিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল

Ekushey Sangbad
Janata Bank
Rupalibank

বাঁশখালী পৌরসভা নির্বাচন রোববারঃ কে হাসবেন জয়ের হাসি!


Ekushey Sangbad
উপজেলা প্রতিনিধি
০৪:৩১ পিএম, ১৫ জানুয়ারি, ২০২২
বাঁশখালী পৌরসভা নির্বাচন রোববারঃ কে হাসবেন জয়ের হাসি!
ছবি: একুশে সংবাদ

ছবি: একুশে সংবাদ

বাঁশখালী(চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি: চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী পৌরসভার বহুল কাংখিত পৌর নির্বাচন ১৬ জানুয়ারী'২২ ইং রোববার। প্রায় ২৭ হাজার ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে নির্বাচিত করবে তাদের পৌর মেয়র। সাধারন জনগনের দৃঢ় প্রত্যাশা শান্তিপুর্ন পরিবেশে সুষ্ট নির্বাচন অনুষ্ঠানে অবিচল থাকবে প্রশাসন।

বাঁশখালী পৌরসভা নির্বাচনের তফশীল ঘোষনার পর থেকে দিনরাত প্রার্থীরা মাঠে-ময়দানে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে সরব-সক্রিয় থাকলেও দির্ঘ সময় ধরে প্রচার প্রচারনায় কোথাও বড়ধরনের কোন অপ্রীতিকর ঘটনা সংঘঠিত না হওয়ায় রাজনৈতিক সম্প্রীতি-সৌহার্দ্যের এলাকা হিসাবে সুখ্যাত বাঁশখালী পৌর নির্বাচনও সুষ্ঠ ও শান্ত পরিবেশে অনুষ্ঠিত হবে বলে আশাবাদী বাঁশখালীর সুশীল সমাজ। নির্বাচনকে সুষ্ট করতে উপজেলা প্রসাশন ইতিমধ্যে সব প্রস্তুতি শেষ করেছে বলে জানিয়েছেন বাঁশখালী উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ ফয়সাল আলম।


বাঁশখালী পৌর নির্বাচনের প্রচার-প্রচারনার শেষ পর্যায়ে এসে কয়েকটি জায়গায় প্রতিপক্ষের প্রচারনায় নৌকা সমর্থকদের হামলা ও বাঁধা প্রদানের পর থেকে নির্বাচনকে ঘিরে টান টান উত্তেজনা ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কড়া নজরদারীর মধ্যে চলছে ভোট গ্রহণের প্রস্তুতি। এ নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় দায়িত্ব পালন করবেন নয়জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। প্রতি ওয়ার্ডে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন। গত ১১ জানুয়ারি এক প্রজ্ঞাপনে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোছাম্মৎ সুমনী আক্তার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্দেশনা প্রদানের জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেন। 

 

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ১৪ জানুয়ারি থেকে নির্বাচনের পরদিন ১৭ জানুয়ারি পর্যন্ত দায়িত্ব পালন শেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাঁছে প্রতিবেদন দাখিল করবেন। বাঁশখালী চৌকির সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মইনুল ইসলামকে বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করা হয়।


বাঁশখালী পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে সরকার দলীয় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী অ্যাডভোকেট এসএম তোফায়েল বিন হোছাইন (নৌকা) এবারের নির্বাচনে নতুন মুখ। অমায়ীক স্বভাব, পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবীদ এবং বাঁশখালী আদালত পাড়ার মেধাবী আইনজীবি হিসাবে তাঁর সুনাম ও জনপ্রিয়তা সর্বমহলে বিরাজমান। এবারের পৌর নির্বাচন বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, "জনগণ যাকে ভোট দেবে সে মেয়র হবে। বর্তমান সরকার দেশের সর্বত্র সমবণ্টনের মাধ্যমে উন্নয়নের জোয়ার সৃষ্ঠি করেছে। সেই উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে জনগণ নৌকায় ভোট দেবে বলে তিনি দৃঢ়ভাবে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।"


অন্যদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে মোবাইল প্রতীক নিয়ে সেয়ানে সেয়ানে টেক্কা দেওয়ার মত প্রার্থী বাঁশখালী পৌরসভার সাবেক মেয়র ও বিএনপি নেতা কামরুল ইসলাম হোছাইনীও (মোবাইল) আলোচনার তুঙ্গে। সাবেক তুখোড় ছাত্রনেতা, বাঁশখালীর রাজনৈতিক মাঠের মজলুম ও ত্যাগী নেতা ও পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ হিসাবে জনপ্রিয়তার পারদের ল্যাভেলে কামরুল ইসলাম হোছাইনীও কম নয় কোন অংশে। হোসাইনী বলেন, "বাঁশখালী পৌরসভা জনগণের আশা পূরণ করতে আমি প্রার্থী হয়েছি। জনগণ চাইলে আমি মেয়র হব। সর্বস্তরের জনগন সুষ্ঠ ও নিরাপদ পরিবেশে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ পেলে মোবাইল প্রতীকের জয় নিশ্চিত বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।"


বাঁশখালী পৌর নির্বাচনের মাঠে তুরুপের তাশ হচ্ছে সাধারন ভোটাররা। ১৬ জানুয়ারী রোবাবার রাতে কে হাসবে শেষ হাসি(!) নির্বাচন সুষ্ট হলে সে ভাগ্য নির্ধারন করে দেবে সাধারন ভোটাররাই, কারন বাঁশখালী পৌরসভার উন্নয়ন নিয়ে সর্বমহলে রয়েছে সাংঘাতিক অসন্তোষ। কারনে অকারনে সবসময় নাগরিকরা পৌর টেক্স দিতে বাধ্য হলেও কাংখীত উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত হয়েছে সবসময়।
এ নির্বাচনে সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১০ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৪ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। পৌরসভার ১১টি কেন্দ্রের মধ্যে চারটি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করেছে প্রশাসন। ঝুঁকিপুর্ন চিহ্নিত কেন্দ্রগুলো হচ্ছে, ১ নং ওয়ার্ডের জলদী ভাদালিয়া সঃ প্রাঃ বিঃ, ৪ নং ওয়ার্ডের পুর্ব জলদী সঃ প্রাঃ বিঃ, ৭ নং ওয়ার্ডের দক্ষিন জলদী আস্করিয়া সঃ প্রাঃ বিঃ এবং ৯ নং ওয়ার্ডের রংঘিয়া ঘোনা মনছুরিয়া সিঃ মাদ্রাসা কেন্দ্র।


এবারের নির্বাচনে ১১ টি কেন্দ্রে মোট ২৬ হাজার ৯ শত ৮০ জন ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। যার মধ্যে পুরুষ ভোটার ১৪,০৯৪ জন, মহিলা ভোটার ১২,৮৮৬ জন বলে জানা গেছে।

বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. কামাল উদ্দিন বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভাবে করার জন্য সকল ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ১১টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। সে মোতাবেক ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসন বদ্ধপরিকর।


বাঁশখালী উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ ফয়সাল আলম বলেন, বাঁশখালী পৌরসভা নির্বাচন ইভিএমের মাধ্যমে হবে। নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করার জন্য সব ধরণের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। আশা করি জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবে।


বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইদুজ্জামান চৌধুরী বলেন, বাঁশখালী পৌরসভার নির্বাচন সুষ্ঠু অবাধ ও নিরপেক্ষভাবে আয়োজনের লক্ষ্যে সকল ধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন করার জন্য মাঠে থাকবে যৌথবাহিনী। পৌরসভার সুষ্ঠু ভাবে ভোট গ্রহণের জন্য প্রত্যেকটি ভোট কেন্দ্রে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, নৌবাহিনী বিজিবিসহ সকল ধরনের আইন শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন রয়েছে। আশা করছি কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হবে।

 

একুশে সংবাদ/এনামুল হক রাশেদী/এইচ আই/